কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

বাংলাদেশে প্রতিদিন প্রায় অনেক মানুষ মারা যায় কিডনি রোগের কারণে। কিন্তু আমাদের মধ্যে প্রায় অনেক মানুষেরই জানা নাই যে কিডনির রোগ প্রতিরোধ করা যায়। এজন্যই কিডনির রোগ প্রতিকার না করার কারণে দৈনিক প্রচুর মানুষ মারা যাচ্ছে। আজকের আমাদের আলোচ্য বিষয়টি হল কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার। 
কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার
আপনি যদি কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে ভালোভাবে জানেন তাহলে এই কিডনি রোগ প্রতিকার করা আপনার কাছে সহজ হয়ে যাবে। তাহলে আর দেরি কেন, চলুন এখনি জেনে নেওয়া যাক কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে। যাতে করে কিডনি নষ্ট হওয়ার আগে এই রোগটি প্রতিকার করা যেতে পারে।

পোস্টের সূচিপত্রঃ কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার

ভূমিকা

কিডনি হচ্ছে একটি মানুষের শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি অঙ্গ একে আমরা বাংলায় বৃক্ক বলে থাকি। একটি মানুষের শরীরে যে দূষিত পদার্থ গুলো থাকে কিডনি সেগুলোকে পরিশোধন করে মূত্রের মাধ্যমে সেগুলো শরীর থেকে দূর করে। যখন কোন সমস্যা হওয়ার ফলে একটি মানুষের কিডনি ড্যামেজ হতে থাকে তখন তাকে কিডনি রোগ বলা হয়। অনেক মানুষ এই কিডনি রোগের প্রতিকার কিভাবে করতে হয় এটি না জানার কারণে আজকাল এই কিডনি রোগ সমস্যায় ভুগছেন। 
কিন্তু কিডনি রোগ প্রতিকার করতে হলে সবার আগে জানতে হবে যে এই রোগটি কিভাবে হয় বা এ রোগ দেখা দিলে কি কি লক্ষণ দেখা যায়। তাহলে আমরা পরিপূর্ণভাবে এই কিডনি রোগ প্রতিকার করতে পারব। আজকে আমাদের এই পোস্টটি পড়ে আপনি খুবই ভালোভাবে বুঝতে পারবেন যে কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে।

কিডনি রোগের লক্ষণ

প্রত্যেকটি রোগ হওয়ার আগে সে রোগের লক্ষণগুলো মানুষের শরীরে দেখা যায়। এবং সেই লক্ষণগুলো দেখার ফলে একটি মানুষ বুঝতে পারে যে সে ধীরে ধীরে রোগটিতে আক্রান্ত হয়ে যাচ্ছে। তেমনি কিডনি রোগের ও বেশ কিছু লক্ষণ আছে। যে লক্ষণ গুলো দেখার মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার কিডনি রোগের সমস্যাটি হয়েছে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক যে কোন কোন লক্ষণ গুলো দেখা গেলে আপনি বুঝতে পারবেন আপনার কিডনি রোগের সমস্যাটি হয়েছে।
  • আপনার যদি কিডনি রোগের সমস্যা হয় তাহলে আপনার শরীর ধীরে ধীরে ফুলে যাবে এবং ফোলাটা মুখমন্ডল থেকে শুরু হবে।
  • আপনার শরীরে যদি কিডনি রোগের সমস্যাটি দেখা যায় তাহলে আপনার শরীরে উচ্চ রক্তচাপ দেখা যাবে।
  • আপনার শরীরের ওজন কমতে থাকবে এবং আপনার খুদা ক্ষুধ দিন দিন হ্রাস পেতে থাকবে।
  • রাতের বেলা প্রচুর পরিমাণে প্রসাবের প্রয়োজন দেখা দিবে।
  • শরীরের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে ক্লান্তি দেখা দিবে।
  • রাতে ঘুম আসবে না।
  • প্রচুর পরিমাণে প্রস্রাব হওয়া আবার প্রস্রাবের পরিমাণ কমে যাওয়া দুটোই কিন্তু কিডনি রোগের লক্ষণ।
  • প্রস্রাবের রং লাল হয়ে যাবে।
  • প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত দেখা যাবে।
  • মানুষের শরীরে কিডনির রোগ দেখা দিলে শরীরের বিভিন্ন অংশের চুলকানি দেখা যাবে আবার মাঝে মধ্যে মাথাব্যথা সমস্যাটি দেখা যেতে পারে।
উপরের যে লক্ষণগুলো দেওয়া আছে এই লক্ষণগুলো যদি একটি মানুষের শরীরে দেখা যায় তাহলে বুঝে নিতে হবে যে তার কিডনি রোগের সমস্যাটি শুরু হচ্ছে এবং যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করতে হবে যাতে করে এই কিডনি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

কিডনি রোগ কেন হয়

কিডনি রোগ হওয়ার অনেকগুলো কারণ রয়েছে। যেসব কারণে কিডনি রোগগুলো হয়ে থাকে আজকে আমরা সে বিষয়গুলো আপনাদের সামনে তুলে ধরব -
  • কোন কোন সময় জন্মগত সমস্যার কারণে কিডনি রোগ সমস্যাটি দেখা যায়।
  • অনেক মানুষের একটি বদ অভ্যাস রয়েছে যে তারা ধূমপান এবং মধ্যপান করেন। এই ধূমপান এবং মধ্য পান করার কারণেও কিডনি রোগের সমস্যাটি দেখা যায়।
  • কারো কারো যদি ডায়াবেটিস বা উচ্চ রক্তচাপ সমস্যাটি থাকে তাহলে এই সব রোগের কারণেও অনেক সময় কিডনি রোগ হয়ে থাকে।
  • অনেক সময় দেখা যায় যে কিডনিতে পাথর হয়েছে। এই কিডনিতে পাথর হওয়ার ফলে ও কিডনি রোগের সমস্যা দেখা যায়।
  • একটি মানুষের প্রতিদিন যে পরিমাণ পানি পান করা প্রয়োজন সে পরিমাণ পানি পান না করার কারণে অনেক সময় এই কিডনি রোগ হয়ে থাকে।
  • মানুষের শরীর সুস্থ রাখতে প্রয়োজন নিয়মিত পরিশ্রম এবং ব্যায়াম। এই নিয়মিত পরিশ্রম এবং ব্যায়ামের অভাবেও অনেক সময় কিডনি রোগ হয়ে থাকে।
  • অনেক সময় দেখা যায় যে শরীরের কোন ব্যাথা হওয়ার ফলে মানুষ ফার্মেসি থেকে ওষুধ কিনে সেবন করে। যদিও এই ওষুধটি মানুষের শরীরের ব্যথা ম্যাজিকের মতো দূর করে দেয় কিন্তু ভুল ওষুধ খাওয়ার কারণে অনেক সময় ধীরে ধীরে কিডনি ড্যামেজ হয়ে কিডনি রোগ দেখা দেয়।

কিডনি রোগের ঘরোয়া চিকিৎসা

একটি মানুষের শরীরে যে গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো থাকে তার মধ্যে কিডনি হচ্ছে অন্যতম। যদি একটি মানুষের শরীরে কিডনির সমস্যা দেখা যায় তাহলে ধীরে ধীরে মানুষটি মৃত্যুর দিকে চলে যেতে পারে। কিন্তু কিছু কিছু ঘরোয়া চিকিৎসা অবলম্বন করার ফলে এই রোগ থেকে অনেকটাই মুক্তি পাওয়া যায়। তাহলে আর দেরি না করে চলুন এখনই জেনে নেওয়া যাক যে কিডনি রোগের সেই ঘরোয়া চিকিৎসা গুলো কি কি বা কোন কোন উপায় অবলম্বন করে এই কিডনি রোগ সমস্যাটি থেকে পরিত্রাণ পাওয়া যায়।
  • পানি একটি মানুষের শরীরের জন্য খুবই উপকারী। পানি মানুষের কিডনিকে পরিষ্কার রাখে এবং ভালো রাখে। তাই কিডনি সমস্যাটি থেকে মুক্তি পেতে হলে আপনাকে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। সারাদিনে কমপক্ষে আট গ্লাস পানি পান করবেন।
  • রসুন কিডনি রোগের সমস্যা দূর করতে খুবই ভালো কাজ করে। তাই আপনার যদি কিডনি রোগের সমস্যা দেখা দেয় তাহলে আপনি আপনার প্রতিদিনের খাদ্য তালিকার মধ্যে রসুন রাখবেন।
  • আদা কিডনির ইনফেকশন দূর করতে খুবই ভালো কাজ করে। কারণ এর মধ্যে যে জিনজেরোলস উপাদানটি থাকে তা শরীরের ব্যাকটেরিয়া পরিষ্কার করতে সহযোগিতা করে।
  • ফলের রস কিডনিকে ভালো রাখতে খুবই ভালো কাজ করে। তরমুজ, জাম, করমচা, শসা, গাজর ইত্যাদি ফলের রস খাওয়ার ফলে আপনি আপনার কিডনিকে কিডনি রোগের সমস্যা থেকে দূরে রাখতে পারেন।
  • কিডনি রোগের সমস্যা যাতে না হয় এজন্য আপনাকে নিয়মিত ব্যায়াম করতে হবে। কারণ নিয়মিত ব্যায়াম একটি মানুষের শরীরের সকল অংশ সুস্থ রাখে।
  • আপনার যদি মদ্যপান এবং ধূমপানের বদ অভ্যাস থাকে তাহলে সেটি এখনই পরিহার করুন। মধ্যপান এবং ধূমপান বাদ দিলে কিডনির সমস্যা থেকে দূরে থাকা যায়।
  • আপনি যদি কিডনি রোগে ভুগেন তাহলে সামান্য ব্যথা হলেই ফার্মেসি থেকে ওষুধ কিনে খাবেন না। কারণ যেকোনো ভুল ওষুধ আপনার কিডনিকে আরো ড্যামেজ করে দিতে পারে।

কিডনি রোগের ঔষধের নাম

বর্তমানে এখন বাজারে বিভিন্ন ফার্মেসির দোকানে বিভিন্ন ধরনের কিডনি রোগের ঔষধ দেখা যায়। এই ওষুধগুলো সেবন করার ফলে কিডনি রোগ থেকে অনেকটা মুক্তি পাওয়া যায়। তাহলে চলুন জেনে নিন কিডনি রোগের সেই ঔষধ গুলো কি কি -
  • Losartan
  • Ramipril
  • Calcium Acetate
  • Erythropoietin
  • Iron
  • Furosemide
  • Alfacalcidol
  • Spironolactone
  • Sevelamer Hydrochloride
এইসব ওষুধগুলো সেবন করার মাধ্যমে আপনি কিডনি রোগ থেকে অনেকটাই মুক্তি পেতে পারেন। তবে আমি আপনাকে বলব যে এসব ওষুধগুলো সেবন করার আগে একজন ভালো ডাক্তারের কাছে থেকে পরামর্শ নিয়ে তারপর ওষুধ সেবন করবেন।

শেষ কথা

আজকে আমরা কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করেছি। আপনি ইতিমধ্যে নিশ্চয়ই কিডনি রোগের লক্ষণ ও প্রতিকার সম্পর্কে খুবই ভালোভাবে জেনে গেছেন। আশা করি আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার কাছে ভালো লেগেছে। যদি এই আর্টিকেলটি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনার বন্ধু-বান্ধব এবং ফ্যামিলির অন্যান্য মানুষদের কাছে আর্টিকেলটি শেয়ার করুন যাতে করে তারাও কিডনি রোগ থেকে দূরে থাকতে পারে। 

আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পর্কে যদি আপনার কোন মন্তব্য থাকে তাহলে আমাদেরকে কমেন্ট বক্সের মাধ্যমে জানাতে পারেন। আমরা সেটির উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url