চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা

এমন অনেক মানুষ রয়েছে যাদের প্রতিদিন এক কাপ চা না হলে যেন সারাদিনটাই মাটি হয়ে যায়। কমবেশি প্রত্যেকটি মানুষই চা খেতে খুবই পছন্দ করে। আবার কোন কোন মানুষকে দেখা যায় যে তারা কিছুক্ষণ পরপর চা পান করে। কিন্তু আপনি কি জানেন চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে। 
চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা
আজকের এই আর্টিকেলটি ভালোভাবে মনোযোগ সহকারে পড়ার মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে। চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা জানার ফলে আপনি বুঝতে পারবেন যে চা খাওয়া আপনার জন্য ভালো নাকি খারাপ। চলুন তাহলে এখনই জেনে নেওয়া যাক চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে।

পোস্টের সূচিপত্রঃ চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা

ভূমিকা

চা খেতে পছন্দ করেন না এমন মানুষ খুব কম দেখা যায়। এমন অনেক মানুষ রয়েছে যাদের সারাদিনে যদি এক কাপ চা খাওয়া না হয় তাহলে যেন তাদের দিন শুরু হয় না। বিকেলবেলা যদি এক কাপ চা খাওয়া হয় তাহলে যেন মনে হয় পুরো শরীরে এনার্জি লোড হয়ে গেল। তবে কিছু কিছু মানুষ রয়েছে যারা সব সময় চা খেতে পছন্দ করে। কিছুক্ষণ পরপর তারা চা খান। 
তবে অতিরিক্ত কোন কিছুই খাওয়া ভালো নয় এটি সব সময় মাথায় রাখতে হবে। অতিরিক্ত খাওয়ার ফলে হতে পারে বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি। তাই চা খাওয়ার যেমন বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে তেমনি কিছু কিছু অপকারিতাও রয়েছে। আপনি যদি একজন যা প্রেমিক হয়ে থাকেন তাহলে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে যে চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে।

মানুষ চা পান করে কেন

অনেকের কাছে একটি কথা শোনা যায় যে, ব্রিটিশরা আমাদের কোন কিছু শেখাতে পারুক আর না পারুক চা খাওয়াটা ঠিকই শিখিয়ে গেছে। প্রতিদিন যদি পরিমাণ মতো চা পান করা যায় তাহলে শরীরের ক্লান্তি দূর হয়ে যায়। এছাড়া প্রতিদিন যদি পরিমাণ মতো চা পান করা যায় তাহলে বিভিন্ন ধরনের উপকার পাওয়া যায়।। প্রতিদিন চা পান করার মাধ্যমে মানসিক প্রশান্তি পাওয়া যায়। চা খাওয়ার মাধ্যমে মাথা থেকে সব চিন্তা দূর হয়ে যায় এবং মনকে শান্ত রাখা যায়। এছাড়া চা খাওয়ার মাধ্যমে আরও বিভিন্ন ধরনের উপকার পাওয়া যায়। এজন্য মানুষ প্রতিদিন চা খেয়ে থাকে।

চা এর উপকারিতা কি কি

বর্তমানে প্রতিদিন চা খাওয়া মানুষের একটি অভ্যাস হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে অনেকের মনে একটি ধারণা এসে থাকে যে, চা খাওয়ার মাধ্যমে হয়তো বা কোন উপকার পাওয়া যায় না। তবে বিভিন্ন ধরনের গবেষণার মাধ্যমে বলা যায় যে চা এর বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে এবং চা খাওয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের উপকার পাওয়া যায়। চলুন জেনে নেওয়া যাক চা এর উপকারিতা গুলো কি কি।
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়ঃ চা খাবার মাধ্যমে শরীরে বিভিন্ন ধরনের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যায়। চা এর মধ্যে যে উপাদান থাকে তা আপনাকে বিভিন্ন ধরনের রোগ থেকে বাঁচাতে সহযোগিতা করে। আপনি যদি আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে চান তাহলে সে ক্ষেত্রে চা আপনাকে সহযোগিতা করতে পারে।

ক্যান্সার রোগ প্রতিরোধ করেঃ ক্যান্সারের রোগ প্রতিরোধ করতে চা খুবই ভালোভাবে কাজ করে। গ্রিন টি এবং ব্লাকটির মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সারের রোগ প্রতিরোধ করতে সহযোগিতা করে এবং ক্যান্সার হওয়ার ঝুঁকি অনেক ক্ষেত্রে কমিয়ে ফেলে।

হার্ট কে ভালো রাখেঃ নিয়মিত চা খাওয়ার মাধ্যমে আপনার হার্ট ভালো থাকে। নিয়মিত যদি আপনি এক কাপ করে চা খান তাহলে আপনার হার্ট ভালো থাকবে। এছাড়া চা আপনার হৃদপিণ্ডকে সুরক্ষিত রাখে।

মাইগ্রেনের সমস্যা কমায়ঃ আপনি যদি মাইগ্রেনের সমস্যায় ভুবেন তাহলে আপনার জন্য চা খুবই উপকারী। কিছু কিছু খাদ্য মাইগ্রেনের সমস্যা বাড়িয়ে ফেলে। আবার এমন কিছু কিছু খাদ্য রয়েছে যেগুলো মাইগ্রেনের সমস্যা অনেকটা কমিয়ে ফেলে। যেমন চা খাওয়ার মাধ্যমে মাইগ্রেনের সমস্যা অনেকটা কমে যায়।

ডায়াবেটিস কমাতে সহযোগিতা করেঃ এখন আপনি হয়তো বা ভাবতে পারেন যে চা খাওয়ার মাধ্যমে আবার কিভাবে ডায়াবেটিস কমানো যায়। তবে অবশ্যই চা খাওয়ার মাধ্যমেও ডায়াবেটিস কমানো যায়। বিভিন্ন ধরনের গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে চা ডায়াবেটিসের ঝুঁকি কমাতে সহযোগিতা করে।

মাথা ব্যথা কমায়ঃ অনেক সময় মাথায় প্রচুর পরিমাণে ব্যথা লক্ষ্য করা যায়। আবার কিছু কিছু সময় লক্ষ্য করা যায় যে মাথার মধ্যে যেন মনে হয় চাপ ধরে আছে। চায়ের মধ্যে এক ধরনের ক্যাফিন জাতীয় উপাদান রয়েছে। এটি মাথা ব্যথা বা মাথা ধরা কমাতে সহযোগিতা করে থাকে।

নার্ভকে শান্ত রাখেঃ নার্ভ কে শান্ত রাখার জন্য চা খুবই ভালো কাজ করে। চায়ের মধ্যে যে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে সেটি মস্তিষ্কে রক্ত এবং অক্সিজেনের সরবরাহ করে থাকে। এবং এর মাধ্যমে চা আমাদের নার্ভ কে শান্ত রাখে।

শরীরের ব্যথা কমায়ঃ আপনার যদি শরীরের কোথাও ব্যথা লাগে তাহলে আপনার সেই ব্যথাটি সারিয়ে তুলতে পারে মধু চা। যদি আপনি কখনো কোথাও আঘাত পাওয়ার কারণে আপনার শরীরের কোন অংশে ব্যথা হয় তাহলে এক কাপ মধু চা খেয়ে দেখতে পারেন। এই মধু চা খাওয়ার মাধ্যমে আপনার শরীরের ব্যথা দূর হয়ে যেতে পারে।

চা পান করলে কি কি ক্ষতি হয়

আপনি ইতিমধ্যে চা খাওয়ার উপকারিতা গুলো খুবই ভালো ভাবে জেনে গেছেন। তবে আপনি কি জানেন যে অতিরিক্ত চা খাওয়ার কিছু অপকারিতা রয়েছে। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক অতিরিক্ত চা পান করলে কি কি ক্ষতি হয়।

ঘুমের সমস্যাঃ আপনার যদি প্রচুর পরিমাণে চা পান করার অভ্যাস থাকে তাহলে আপনি একটি বিষয় লক্ষ্য করে দেখবেন যে আপনার ঘুমের পরিমাণ কম হচ্ছে বা ঘুম আসতে চায় না।

মানসিক সমস্যাঃ আপনি যদি পরিমাণের বেশি পরিমাণ চা প্রতিদিন পান করে থাকেন তাহলে আপনি বিভিন্ন ধরনের মানসিক সমস্যা বা দুশ্চিন্তার মধ্যে পড়তে পারেন। এবং আপনি একটি বিষয় লক্ষ্য করে দেখবেন যে আপনার মধ্যে অস্থিরতা দেখা যাবে।

আয়রনের ঘাটতিঃ অতিরিক্ত চা পান করার ফলে আপনার শরীরে আয়রনের ঘাটতি দেখা যেতে পারে। তাই কখনোই অতিরিক্ত চা পান করা উচিত নয়।

এসিডিটির সমস্যাঃ চায়ের মধ্যে যে ক্যাফেইন উপাদান থাকে যা মানুষের শরীরে এসিডিটি তৈরি করে। এবং এই এসিডিটির মাধ্যমে পেট ফুলা এবং বুক জ্বালাপোড়া করা সহ আরো নানা ধরনের সমস্যা দেখা যায়। তাই এসিডিটির সমস্যা থেকে বাঁচতে আপনার উচিত হবে না কখনো অতিরিক্ত পরিমাণে চা পান করা।

বমি বমি ভাবঃ অতিরিক্ত চাপ পান করার মাধ্যমে আপনার হজমে সমস্যা হতে পারে। এবং যখন ঠিকমতো হজম না হয় তখন বমি বমি ভাব দেখা যায়।

লাল চা খাওয়ার উপকারিতা

অনেকেই দেখা যায় যে লাল চা খেতে পছন্দ করেন। এই লাল চায়ের বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে। লাল চায়ের প্রথম উপকারিতা হচ্ছে এটি আপনার হার্ট কে ভালো রাখে। নিয়মিত লাল চা খাওয়ার মাধ্যমে আপনার যদি হার্টের অসুখ থেকে থাকে তাহলে সেটি সেরে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। লাল চায়ের মধ্যে ক্যাফিন উপাদানটি থাকে না। যার কারণে এটি সকল মানুষই পান করতে পারেন। এছাড়া লাল চা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করতে সহযোগিতা করে। 

শরীরের মধ্যে ডায়াবেটিসহ আরো যেগুলো জটিল রোগ হয়ে থাকে সেগুলো হওয়ার ঝুঁকি অনেকটা কমিয়ে ফেলে। লাল চা অনেক সময় ওজন কমাতেও সহযোগিতা করে থাকে। আপনি যদি আপনার ওজন কমাতে চান তাহলে লাল চা হচ্ছে খুবই ভালো এবং কার্যকরী একটি উপাদান। এছাড়া লাল চা খাওয়ার মাধ্যমে আপনার ত্বক উজ্জ্বল হতে পারে। এবং এই লাল চা খাওয়ার মাধ্যমে আপনার ত্বকে যদি কোন দাগ থাকে তাহলে সেগুলো চলে যাওয়া সম্ভাবনা থাকে।

দুধ চা খাওয়ার উপকারিতা

প্রতিটি চায়ের কোন না কোন উপকারিতা রয়েছে। তেমনি দুধ চায়েরও বেশ কিছু উপকারিতা রয়েছে। চলুন জেনে নাও যাক দুধ চা খাওয়ার উপকারিতা গুলো কি কি। দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে আপনি চাইলে মোটা হতে পারবেন আবার আপনি চাইলে চিকন হতে পারবেন। আপনি যদি আপনার ওজন বাড়াতে চান তাহলে দুধ চায়ের মধ্যে থাকা ফ্যাট আপনাকে মোটা করে তুলতে সহযোগিতা করবে। আবার আপনি যদি আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখতে চান তাহলে দুধ চায়ে থাকা পলিফেনল এবং ক্যাফিন আপনার শরীরের ওজন কমাতে সহযোগিতা করে। দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে শরীরের মধ্যে শক্তির যোগান দিয়ে থাকে।

দুধ চা এর ক্ষতিকর দিক

দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা পাওয়া যায়। তবে দুধ চায়ের বিভিন্ন ধরনের ক্ষতির দিক রয়েছে। এখন আমরা আলোচনা করব দুধ চা এর ক্ষতির দিকগুলো সম্পর্কে।
  • দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের পুষ্টির ঘাটতি দেখা দিতে পারে।
  • দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে স্ট্রেস বা দুশ্চিন্তা বেড়ে যেতে পারে।
  • দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে অনেক সময় অনিদ্রা দেখা যায়।
  • অতিরিক্ত দুধ চা পান করার মাধ্যমে ব্রণ ওঠার সম্ভাবনা থাকে।
  • অতিরিক্ত দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে কখনো কখনো রক্তচাপ উঠানামা করতে দেখা যায়।
  • দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে অনেক সময় পেট ফাঁপতে পারে।
  • অনেক সময় দুধ চা খাওয়ার মাধ্যমে কোষ্ঠকাঠিন্য সমস্যাটি দেখা যায়।
  • তাই চায়ের গুণাগুণ যদি আপনি ঠিকমত ভাবে পেতে চান তাহলে আপনি লাল চা খাওয়ার চেষ্টা করুন। এছাড়া আপনি গ্রিন টি এবং ব্ল্যাক টি ও খেতে পারেন।

শেষ কথা

আপনি নিশ্চয়ই ইতিমধ্যে ভালোভাবে জেনে গেছেন যে চা এর উপকারিতা ও অপকারিতা গুলো কি কি। এবং আপনি এটিও ভালোভাবে বুঝে গেছেন যে কোন চা টি খাওয়া আপনার জন্য ভালো হবে এবং কোন চা টি খাওয়া আপনার জন্য ক্ষতিকর হবে। আজকের এই আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে আর্টিকেলটি অন্যদের সাথে শেয়ার করুন যাতে করে তারাও চা এর উপকারিতা এবং অপকারিতা সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে পারে। এছাড়া নতুন নতুন আর্টিকেল পড়ার জন্য আমাদের ওয়েবসাইটটি নিয়মিত ভিজিট করুন। ভালো থাকবেন এবং সুস্থ থাকবেন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url