গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায়

এসিডিটি বা গ্যাস্ট্রিক এই সমস্যাটি প্রতিনিয়ত এখন মানুষের মধ্যে দেখা যায়। খাবারে অনিয়মিতা, অতিরিক্ত পরিমাণে ঝাল যুক্ত খাবার খাওয়া, অতিরিক্ত পরিমাণে মশলা জাতীয় খাবার খাওয়া, মদ্যপান করা ইত্যাদির কারণে এই এসিডিটির বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়ে থাকে। 
গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায়
তাই আপনি যাতে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তি পেতে পারেন এজন্য আজকে আমরা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায় সম্পর্কে আর্টিকেল লিখছি। আশা করা যায় যে আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে আপনি বেশ উপকৃত হবেন। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায় সম্পর্কে।

পোস্টের সূচিপত্রঃ গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায়

ভূমিকা

বেশিরভাগ মানুষই এখন গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় ভোগেন। এবং এই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য বিভিন্ন ধরনের ওষুধ সেবন করেন। কিন্তু বেশিদিন যাবত পর্যন্ত এই ঔষধ খাওয়ার ফলে হতে পারে নানা ধরনের সমস্যা। কারণ গ্যাস্ট্রিকের ওষুধগুলো নিয়মিত খাওয়া শরীরের জন্য তেমন ভালো না। তাই আজকে আমরা আপনাদেরকে সুখবর যে কিভাবে আপনি ঘরোয়া পদ্ধতিতে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে চিরতরে মুক্তি পেতে পারেন। 
আজকের এই আর্টিকেলটি সম্পূর্ণরূপে পড়ার পর যদি আপনি আর্টিকেলের সবগুলো বিষয় মেনে চলেন তাহলে আশা করা যায় যে পরবর্তীতে আপনাকে আর গ্যাস্ট্রিকের কোন ধরনের সমস্যার মধ্যে পড়তে হবে না। আজকের এই আর্টিকেল এর মধ্যে এমন কিছু চমৎকার বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হবে যে সেগুলো মেনে চললে আপনার গ্যাস্ট্রিক চমৎকারভাবে চিরতরে দূর হয়ে যাবে। তাহলে আর দেরি কেন চলুন এখনই শুরু করা যাক।

গ্যাস্ট্রিক কেন হয়

বিভিন্ন কারণে গ্যাস্ট্রিক হয়ে থাকে। হতে পারে সেটি অতিরিক্ত ঝাল খাবার খাওয়া, কোন ধরনের ভেজাল খাবার খাওয়া, অতিরিক্ত পরিমাণে মসলা জাতীয় খাবার খাওয়া, মদ্যপান করা ইত্যাদি কারণে এই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে। মানব শরীরে যে পাকস্থলী থাকে সেই পাকস্থলীতে গ্যাস্ট্রিক গ্ল্যান্ডে অতিরিক্ত পরিমাণে এসিড নিঃসরিত হলে এই এসিডিটি বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়ে থাকে। 
সাধারণত আপনি যদি অনেকক্ষণ যাবত খালি পেটে থাকেন বা অতিরিক্ত পরিমাণে চা বা কফি পান করেন অথবা অতিরিক্ত পরিমাণে ধূমপান মধ্যপান করেন তাহলে এই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে। আবার অনেক সময় দেখা যায় যে মানুষের মধ্যে যখন দুশ্চিন্তা কাজ করে বা মানুষের মধ্যে প্রচুর পরিমাণে অনিদ্রা দেখা যায় তখন এই এসিডিটি বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়ে থাকে। এই গ্যাস্টিক বা এসিডিটির সমস্যা হলে পেট ফুলে যায়, ঢেকুর উঠে, বুক জ্বালাপোড়া করে এবং পেটের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হয়ে থাকে।

গ্যাস্ট্রিকের লক্ষণ

বিভিন্ন ধরনের লক্ষণ দেখা দেওয়ার মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাটি হয়েছে। আপনার যদি কোন সময় লক্ষ্য করে দেখেন যে আপনার খিদা কমে গেছে বা একদমই খিদা লাগছে না তাহলে বুঝে নিতে হবে যে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যাটি হয়েছে। আবার যদি কোন সময় লক্ষ্য করেন যে পেটে গ্যাস হয়েছে তাহলে বুঝে নিতে হবে এটি একটি গ্যাস্ট্রিক রোগের লক্ষণ। 

গ্যাস্ট্রিক বা এসিডিটির সমস্যাটি হলে প্রচণ্ড পরিমাণে বুক জ্বালাপোড়া করে এবং পেটে ব্যথা করে এই ধরনের সমস্যা যদি আপনার হয়ে থাকে তাহলে আপনাকে বুঝতে হবে যে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়েছে। আবার যদি কখনো বুক এবং পেটে চাপ অনুভূত হয় বা হজমে অসুবিধা হয় বা বমি বমি লাগে তাহলেও বুঝতে হবে যে এটি গ্যাস্ট্রিক রোগের লক্ষণ। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হলে অনেকেই গ্যাস্ট্রিকের বিভিন্ন ধরনের ওষুধ খেয়ে থাকেন। 

তবে বিশেষজ্ঞদের মতে, ওমিপ্রাজল জাতীয় যেসব গ্যাস্ট্রিকের ওষুধ রয়েছে আপনি যদি সে সব ওষুধ বছরের পর বছর সেবন করতে থাকেন তাহলে এটা আপনার জন্য অনেক বিপদজনক হয়ে পড়বে। কারণ এ জাতীয় ওষুধ অনেক বেশি সময় ধরে সেবন করার কারণে শরীরে ক্যান্সারের ঝুঁকি বেড়ে যেতে পারে বা শরীরের মধ্যে রক্তশূন্যতা দেখা দিতে পারে।

গ্যাস্ট্রিক হলে কি কি খাওয়া যাবেনা

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হলে ডাক্তার বিভিন্ন ধরনের খাবার না খাওয়ার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। আসুন তাহলে জেনে নিন গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হলে কি কি খাওয়া যাবেনা।
  • আপনার যদি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকে তাহলে কোন ধরনের ডাল বা ডাল জাতীয় খাবার থেকে দূরে থাকবেন। বুট, ছোলা, সয়াবিন ইত্যাদি খাবার থেকে সব সময় দূরে থাকবেন। কারণ এ ধরনের খাবারে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন এবং ফাইবার রয়েছে যা দ্রুত হজম হয় না। এবং এর ফলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হতে পারে।
  • ব্রকলি, বাঁধাকপি, পাতাকপি এগুলো খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। কারণ এই খাবারগুলোতে রাফিনোজ নামক এক ধরনের উপাদান রয়েছে। আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকা অবস্থায় যদি এই ধরনের সবজি খান তাহলে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা আরো বাড়তে পারে।
  • গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হলে দুধ এবং দুধ জাতীয় খাবারগুলো নিয়ে চলুন। যদি আপনি দুধ এবং দুধ জাতীয় খাবার খাওয়ার সময় কখনো লক্ষ্য করেন যে আপনার পেটের সমস্যা হচ্ছে তাহলে বুঝে নিতে হবে এই খাবারগুলো আপনার সহজে হজম হচ্ছে না। এবং এই হজম না হওয়ার কারণে আপনার পেটে সমস্যা দেখা দিচ্ছে বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দেখা দিচ্ছে।
  • গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হলে কখনো আপেল ও পেয়ারা খাবেন না। কারণ আপেলে এবং পেয়ারাতে রয়েছে ফাইবার এবং সর্বিটোল নামক সুগার উপাদান। এই উপাদানগুলোর জন্য পেয়ারা ও আপেল দ্রুত হজম হতে চাই না এবং এর ফলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হয়ে থাকে।

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায়

এখন আমরা যে বিষয়টি নিয়ে কথা বলবো সেটি হলো গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধানের উপায়। আসুন তাহলে জেনে নিন কি কি উপায়ে আপনি আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে পারবেন।
  • গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা হলে প্রচুর পরিমাণে পানি পান করতে হবে। যারা শহর অঞ্চলে থাকেন তারা পানি ফুটিয়ে খাওয়ার চেষ্টা করবেন। কখনোই সরাসরি ট্যাপের পানি পান করবেন না। সরাসরি এই ট্যাপের পানি পান করার ফলে পেটের সমস্যা বা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা আরো বাড়তে পারে।
  • অনেকেরই একটা বদ অভ্যাস আছে যে তারা সকালের খাবার খাই দুপুরে দুপুরের, খাবার খায় বিকেলে এবং রাতের খাবার অনেক রাত হওয়ার পরে খায়। কিন্তু এরকম কাজ কখনোই করা যাবে না। আপনি যদি ঠিক সময় মত খাবার না খান তাহলে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বা এসিডিটির সমস্যা হতে পারে।
  • খাবার খাওয়ার সময় কখনো একবারে পেট ভর্তি করে খাবেন না। কারণ পেট ভর্তি করে খাবার খাওয়ার মাধ্যমে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বা এসিডিটির সমস্যা সহ আরো বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।
  • অতিরিক্ত তেল বা চর্বিযুক্ত খাবার খাওয়া, ভাজাপোড়া জাতীয় খাবার খাওয়া, অতিরিক্ত ঝাল জাতীয় খাবার খাওয়া বা অতিরিক্ত মসলা জাতীয় খাবার খাওয়া থেকে সবসময় বিরত থাকুন। কারণ এই ধরনের খাবার খাওয়ার ফলে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বা এসিডিটির সমস্যা আরো বাড়তে পারে।
  • বিভিন্ন ধরনের সফট ড্রিংকস খাওয়া থেকে বিরত থাকুন। কারণ আপনার যদি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থাকে এবং আপনি যদি সফট ড্রিঙ্কস খান তাহলে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা আরো বাড়তে পারে।
  • প্রতিদিন খাবার খাওয়ার পরে অন্তত ১৫ থেকে ২০ মিনিট ধরে হাঁটাহাঁটি করুন। হাটাহাটি করার মাধ্যমে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বা এসিডিটির সমস্যা দূর হয়ে যাবে।

গ্যাস্ট্রিক দূর করার খাবার

বিভিন্ন ধরনের খাবার খাওয়ার মাধ্যমে আপনি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে পারেন। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক যে কোন খাবার খাওয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে পারবেন।
  • জিরা খাওয়ার মাধ্যমে আপনি আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করে ফেলতে পারেন। এই জিরা গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার পাশাপাশি আপনার বদহজম দূর করে ফেলতে পারে।
  • আপনি আপনার পেটের যে কোন সমস্যা দূর করার জন্য তুলসী পাতা খেতে পারেন। এই তুলসী পাতা কে এক ধরনের আয়ুর্বেদিক ওষুধ বলা হয়ে থাকে। আপনি যদি নিয়মিত তুলসী পাতা খেতে থাকেন তাহলে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর হয়ে যাবে।
  • মৌরি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করতে অনেক ভালো কাজ করে থাকে। এটি যে শুধু আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করবে এমনটি নয় এটি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার পাশাপাশি আপনার কোষ্ঠকাঠিন্য জাতীয় সমস্যা দূর করে ফেলবে।
  • ক্যামোমিল টি খাবার মাধ্যমে আপনি আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা খুব সহজে দূর করে ফেলতে পারবেন। এছাড়া এই ক্যামোমিল টি পান করার মাধ্যমে আপনার হজম শক্তিও বেড়ে যাবে।
  • পেটের সমস্যা দূর করতে পুদিনা পাতা খুবই ভালো কাজ করে থাকে। এ পুদিনা পাতা খাওয়ার মাধ্যমে পেট ফাঁপা সহ গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা বা এসিডের সমস্যা খুব সহজেই দূর হয়ে যায়।

শেষ কথা

গ্যাস্ট্রিকের সমস্যার সমাধানে উপায় সম্পর্কে উপরে অনেকগুলো বিষয় নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। আপনি যদি সেই বিষয়গুলো নিয়মিত মেনে চলার চেষ্টা করেন তাহলে আশা করা যায় যে আপনার গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা ম্যাজিকের মত চিরতরে মুক্ত হয়ে যাবে। আজকের এই আর্টিকেলটা যদি আপনাদের কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে সেটি অন্যদের কাছে শেয়ার করবেন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url