বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি

বর্তমানে অনেকেই জানে না যে বিকাশে যদি ভুলবশত কারো নাম্বারে টাকা চলে যায় তাহলে কি করতে হয়। এজন্য অনেকেই ভুল করে অন্য বিকাশ নাম্বারে টাকা পাঠিয়ে দিয়ে নানা ধরনের ভোগান্তির মধ্যে পড়ে। তাই যাতে আপনারা আর কোন ধরনের ভোগান্তির মধ্যে না পড়েন এজন্য বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি এই বিষয়ে আমরা আজকে আর্টিকেল লিখছি। 
বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি
আজকের এই আর্টিকেলটি যদি আপনি মনোযোগ সহকারে ভালোভাবে পড়েন তাহলে আশা করা যায় যে কোন ভাবে যদি ভুলবশত অন্য নাম্বারে টাকা চলে যায় তাহলে আপনাকে আর কোন ধরনের ভোগান্তির মধ্যে পড়তে হবে না। কারণ আজকের আমাদের এই পোস্টে আমরা বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি এই বিষয়ে যাবতীয় আলোচনা করবো। তাহলে আর দেরি না করে চলুন শুরু করা যাক।

পোস্টের সূচিপত্রঃ বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি

বিকাশে ভুল নাম্বারে টাকা গেলে তাকে জানাবেন না

কখনো যদি আপনি ভুলবশত অন্য কোন বিকাশ নাম্বারে ভুলে টাকা পাঠিয়ে থাকেন তাহলে যার নাম্বারে টাকা গেছে তাকে কখনোই আগে জানাবেন না যে আপনার মাধ্যমে ভুলবশত তার বিকাশ একাউন্টেটাকা চলে গেছে। কারণ বর্তমানে এমন অনেক মানুষ আছেন যারা সুযোগ-সন্ধানী হয়ে থাকেন। তাই ভুলবশত যদি তাদের কাছে বিকাশের মাধ্যমে টাকা চলে যায় তাহলে তারা কখনোই আপনার টাকা ফেরত দেবে না বরং আপনার টাকা সে নিজের টাকা বলে দাবি করে বিকাশ থেকে টাকা উঠিয়ে নিবে। 
তাই আপনি যদি ভুল করে অন্য বিকাশ নম্বরে টাকা পাঠিয়ে দেন তাহলে কখনোই তাকে আগে জানাবেন না তার কারণ হলো সেই ব্যক্তিটি যদি অসৎ হয়ে থাকে তাহলে আপনি টাকা পাঠানোর পরে জানালে সেটি কখনোই ফেরত পাবেন না। ভুলে অন্য কারো বিকাশ নাম্বারে টাকা গেলে তাকে জানানোর পরিবর্তে আপনাকে নির্দিষ্ট কিছু ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। চলুন তাহলে এখন জেনে নেওয়া যাক যে বিকাশে যদি ভুলে অন্য কোন নম্বরে টাকা চলে যায় তাহলে আপনি কি কি উপায় অবলম্বন করবেন।

বিকাশে ভুল নাম্বারে টাকা গেলে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে কল করা

আপনি যদি ভুলবশত অন্য বিকাশ নম্বরে টাকা পাঠিয়ে দেন তাহলে আপনার উচিত হবে যে প্রথমে কাস্টমার কেয়ারে ফোন দিয়ে সেখানকার মানুষদের সাথে যোগাযোগ করা। আপনি যদি কাস্টমার কেয়ারের কারো সাথে আপনার সমস্যা নিয়ে কথা বলেন তাহলে তারা সব সময় চেষ্টা করবে আপনাকে সেই সমস্যা থেকে সমাধান দেওয়ার জন্য। তাই বলে অন্য বিকাশ নাম্বারে টাকা যাওয়ার পরে যত দ্রুত সম্ভব হবে কাস্টমার কেয়ারের সাথে যোগাযোগ করতে হবে। 

অনেক সময় কাস্টমার কেয়ারে ফোন দিলে তাদেরকে বিজি দেখায়। এর কারণ হলো তারা বিভিন্ন ধরনের কাজে সব সময় ব্যস্ত থাকে এবং প্রচুর পরিমাণে ফোন কল আসার মাধ্যমে মাঝেমধ্যে আপনার কল রিসিভ করতে একটু দেরি হতে পারে। তবে যদি তারা ফ্রি থাকে তাহলে আপনার কলটি তৎক্ষণাৎ রিসিভ করবে এবং আপনাকে বিভিন্ন ধরনের সমাধানের কথা বলবে। আপনি তাদের নিয়মগুলো ফলো করবেন তাহলে আপনি খুব সহজেই আপনার টাকাটি ফেরত পেতে পারেন। 

তবে বিকাশ কাস্টমার কেয়ারে কল দেওয়ার পরে আপনাকে আপনার একাউন্ট সম্পর্কে কিছু তথ্য জিজ্ঞাসা করবে। আপনি যদি সে তথ্য গুলোর উত্তর সঠিকভাবে দিতে পারেন তাহলে কাস্টমার কেয়ারে থাকা কর্মকর্তারা আপনি যে নাম্বারে বলে টাকা পাঠিয়েছেন সেই নাম্বারটির বিকাশ একাউন্ট বন্ধ করে দিবে। এতে করে ওই ব্যক্তি বিকাশ থেকে আর টাকা তুলতে পারবে না এবং আপনি আপনার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন।

নন বিকাশ একাউন্টে ভুলে টাকা চলে গেলে টাকা পাঠানো ক্যান্সেল করুন

আপনি যদি ভুলবশত কোন নন বিকাশ একাউন্টে টাকা পাঠিয়ে থাকেন তাহলে আপনি খুব সহজেই সে টাকা পাঠানো টি ক্যানসেল করে ফেলতে পারবেন। আপনি যদি ভুলবশত কোন নন একাউন্টে টাকা পাঠিয়ে দেন তাহলে আপনার প্রথম কাজ হবে আপনার ট্রানজেকশন টি ক্যানসেল করে দেওয়া। আপনাকে বিকাশ অ্যাপসে প্রবেশ করার পরে সেখানকার সেন্ড অপশনে গিয়ে যদি সেখানে আপনি ক্যানসেল করার অপশন পান তাহলে সেখান থেকে ক্যানসেল করে দিতে হবে। 
আপনি যদি নন- বিকাশ একাউন্টে টাকা পাঠানো ক্যান্সেল করে দেন তাহলে সহজেই আপনার বিকাশ নাম্বারে আপনার পাঠানো টাকাটি ফিরে আসবে। তাহলে যেমন এখন জেনে নেওয়া যাক যে আপনি কিভাবে বুঝবেন যে আপনি যে নাম্বারে টাকা পাঠিয়েছেন সেটি একটি নন বিকাশ একাউন্ট নাম্বার।

নন বিকাশ একাউন্ট চেনার উপায়

আপনি খুব সহজেই বিকাশ অ্যাপ এর মাধ্যমে নন বিকাশ একাউন্ট চিনতে পারবেন। আপনি বিকাশ অ্যাপ থেকে সেন্ড মানি অপশনে গিয়ে টাকা পাঠানোর জন্য যে নাম্বারটি সিলেক্ট করবেন সে নম্বরটি সিলেক্ট করার পরে যদি নিচে ইংলিশ অথবা বাংলায় দেখতে পান যে এই রিসিভারের বিকাশ একাউন্ট নেই তাহলে আপনাকে বুঝে নিতে হবে যে এটি একটি নন বিকাশ একাউন্ট নাম্বার। 

অর্থাৎ এই নম্বরে বিকাশ একাউন্ট খোলা নেই। তবে অনেকেরই ইংলিশে লেখা থাকার কারণে বুঝতে অনেক সময় সমস্যা হয়ে থাকে। তাই সেটিংস অপশন থেকে বিকাশ এপস এর ভাষাটি বাংলায় করে নিতে হবে। এক্ষেত্রে বিকাশের সকল কিছু ইংলিশের পরিবর্তে বাংলা লেখা দেখাবে।

বিকাশে ভুল নাম্বারে টাকা গেলে থানায় জিডি করা

কোন কারনে যদি ভুলবশত অন্য কোন নাম্বারে টাকা চলে যায় তাহলে আপনার উচিত হবে থানায় জিডি করা। তবে আপনার উচিত হবে প্রথমে কাস্টমার কেয়ারের সাথে কথা বলা। এরপর তারা যদি আপনাকে জিডি করে সেই জিডির ফাইল বিকাশ অফিসে গিয়ে জমা দিতে বলে তাহলে আপনি টাকা পাঠানোর পরে যেই ট্রানজেকশন নম্বরটি পেয়েছেন সেই নম্বরটি দিয়ে থানায় একটি জিডি করতে হবে। এরপর সেই জিডির ফাইলটি নিয়ে কোন একটি বিকাশ অফিসে গিয়ে সেই জিডির কাগজ জমা দিয়ে আসতে হবে। 

সে জিডির কাগজ যখন আপনি অফিসে জমা দিয়ে আসবেন তখন অফিসে কর্মকর্তারা সেই নম্বরে ফোন দিয়ে টাকা ফেরত দেওয়ার কথা বলবে। টাকা ফেরত যাওয়ার পরে সে ব্যক্তিটি যদি আপনার টাকাটি নিজের বলে দাবি করে তাহলে সেটির প্রমাণ বিকাশের কর্মকর্তারা তার থেকে চাইবে। কিন্তু সেই ব্যক্তিটি যদি সঠিক প্রমাণ না দিতে পারে তাহলে তার একাউন্টটি ব্লক করে দিয়ে আপনার সেই টাকাটি আপনার বিকাশ একাউন্টে ফেরত দিয়ে দেওয়া হবে। এভাবে আপনি খুব সহজেই আপনার টাকাটি ফিরে পাবেন।

শেষ কথা

সুপ্রিয় পাঠক আপনি যদি সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পারবেন যে বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি। কারণ আমাদের এই আর্টিকেলটিতে বিকাশে ভুলে টাকা চলে গেলে করণীয় কি এই সম্পর্কে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দেওয়া হয়েছে। যাতে করে আপনি ভুল নম্বরে টাকা পাঠানোর পরে সতর্ক হয়ে যেতে পারেন। 

আশা করা যায় যে আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনি অনেক ভাবে উপকৃত হতে পারবেন। আজকের এই আর্টিকেলটি অন্যদের কাছে শেয়ার করুন যাতে তারা এ আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে সতর্ক হয়ে যেতে পারে। নিয়মিত এমন লেটেস্ট পোস্ট পাওয়ার জন্য নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করতে থাকুন। ভালো থাকেন সুস্থ থাকেন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url