বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়

আঁচড় বা কামড় খায়নি এমন অভিজ্ঞতা সম্পন্ন বিড়াল মালিক খুঁজে পাওয়া অনেকটাই কঠিন। আপনার পোষা বিড়ালটি যতই আদুরে হোক না কেন আপনাকে একবার হলেও তার নখ দিয়ে আঁচড় দিয়েছে। আবার অনেক সময় এই আঁচড় দেওয়ার কারণে কোন কোন জায়গাতে কেটে গেছে। কিন্তু আপনি কি জানেন যে বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়। 
বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়
তাই আজকের আমাদের আর্টিকেলটি লেখা হয়েছে বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয় এই বিষয়টি নিয়ে। আপনি যদি বিড়াল পোষেন তাহলে আপনার অবশ্যই জেনে রাখা উচিত যে বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক যে বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়।

পোস্টের সূচিপত্রঃ বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়

ভূমিকা

যখন কাউকে বিড়াল তার নখ দিয়ে আঁচড় দেয় তখন অনেকেই দুশ্চিন্তার মধ্যে পড়ে যায় যে কি করবেন বা এখন তার কি কি সমস্যা হতে পারে। আপনার বিড়ালটি যতই আদুরে প্রাণী হোক না কেন সেই বিড়াল কখনো না কখনো আপনাকে একবার হলেও তার নখ দিয়ে আঁচড় দিয়েছে। তবে আপনি কি জানেন যে আপনার বিড়াল যদি তার নখ দিয়ে আপনাকে আঁচড় দেয় তাহলে আপনি তৎক্ষণাৎ কি করবেন বা কি কি কাজ করে আপনার উচিত। 
আপনাদেরকে এ বিষয়ে জানানোর জন্যই আমরা আজকের এই আর্টিকেলের মধ্যে বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয় এ বিষয়ে নিয়ে লিখছি। আমি মনে করি যে এই আর্টিকেলটি পড়া আপনার জন্য খুবই জরুরী। কারণে আর্টিকেলের মাধ্যমে আপনি খুবই ভাল ভাল বুঝতে পারবেন যে বিড়াল তার নখ দিয়ে আঁচড় দিলো কি করতে হবে। তাহলে আর দেরি না করে চলুন এখনি জেনে নেওয়া যাক।

বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয়

কোন বিড়াল যদি কোন মানুষকে কামড় দেয় বা তার নখ দিয়ে আঁচড় দেয় তাহলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে। কারণ বিড়ালের নখে বা দাঁতে এক ধরনের বিষাক্ত বিষ রয়েছে যেটির মাধ্যমে পড়তে হতে পারে আপনাকে নানা ধরনের সমস্যার মধ্যে। তাহলে চলুন এখন জেনে নেওয়া যাক যে বিড়াল কামড়ালে বা নখ দিয়ে আঁচড় দিলে কি কি সমস্যা হতে পারে।
  • বিড়াল যদি আপনাকে কামড়ায় বা নখ দিয়ে আঁচড় দেয় তাহলে এখানে মারাত্মক গভীর ক্ষত হতে পারে বা ফ্র্যাকচার হতে পারে।
  • বিড়ালের কামড়ে বা নখের আঁচড়ে অনেক সময় ধনুস্টংকার রোগ হতে পারে।
  • বিড়ালের কামড়ে বা আঁচড়ে অনেক সময় জলাতঙ্ক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • অনেক সময় বিড়ালের কামড়ে বা নখের আঁচড়ে বিভিন্ন ধরনের ব্যাকটেরিয়ার জনিত রোগ হওয়ার সংক্রমণ বেড়ে যেতে পারে এবং এর পরে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।
  • আপনার পোষা বিড়ালটি যদি আপনাকে খুব বেশি জোরে কামড় দেয় বা তার নখ দিয়ে আঁচড় দেয় তাহলে আপনার রক্তনালি বা স্নায়ু ও পেশীর বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • যাদের শরীরে দুর্বল রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা থাকে অর্থাৎ রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা একেবারেই কম থাকে তাদের যদি বিড়াল কামড়ায় বা নক দিয়ে আঁচড় দেয় তাহলে পাস্তরেলা রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। তাই বিড়াল যাতে কোন সময় কামড় না দিতে পারে বা নখ দিয়ে আঁচড় না কাটতে পারে সেদিকে সব সময় লক্ষ্য রাখতে হবে আর তা না হলে পড়তে হতে পারে নানা ধরনের সমস্যার মধ্যে।

বিড়ালের নখের আঁচড়ে বা কামড়ে কি করবেন

বিড়ালের নখের আঁচড়ে বা কামড়ে আপনার কি কি করা উচিত এখনই জেনে নিন
  • আপনাকে যদি বিড়াল আঁচড় দেয় তাহলে সর্বপ্রথম যেটি দেখতে হবে সেটি হল আপনার ক্ষতস্থানের গভীরতা দেখতে হবে। তবে বিড়ালের আঁচড়ে তেমন খুব একটা বেশি ক্ষত হয় না। বিড়াল যে স্থানে আঁচড় দিবে সেই স্থানটিকে ভালোভাবে জীবাণুনাশক দিয়ে পরিষ্কার করে ফেলতে হবে। তবে দুর্ভাগ্যবশত যদি বিড়ালের আঁচড়ে আপনার অতিরিক্ত পরিমাণে ক্ষত হয়ে যায় বা অতিরিক্ত পরিমাণে রক্ত পড়তে থাকে তাহলে দেরি না করে যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।
  • অনেক সময় বিড়ালের আঁচড়ে রেবিস ভাইরাস বা জলাতঙ্ক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। এজন্য এ ধরনের রোগের জীবাণু ধ্বংস করার জন্য সবচেয়ে ভালো একটি উপায় হচ্ছে সাবান পানি ব্যবহার করা। তাই যদি কখনো আপনাকে বিড়াল আঁচড় দেয় তাহলে দেরি না করে যত দ্রুত সম্ভব সাবান পানি দিয়ে সেই স্থানটি ভালোভাবে ধুয়ে ফেলা। এতে করে সেখানে যদি কোন জীবাণু থেকে থাকে তাহলে সেগুলো ধ্বংস হয়ে যাবে।
  • বিড়ালের নখের আঁচড়ে অনেক সময় শরীরের মধ্যে ব্যাকটেরিয়া ছড়িয়ে পড়তে পারে। এজন্য শরীরের মধ্যে যাতে ব্যাকটেরিয়া না ছাড়াই বা ব্যাকটেরিয়া প্রতিরোধ করার জন্য অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করতে হবে। এই এন্টিবায়োটিকের ক্ষেত্রে সব থেকে বেশি কার্যকর হচ্ছে স্যাভলন বা ডেটল। আপনার যদি রক্তপাত হতে থাকে তাহলে সেই স্থানটিকে ব্যান্ড এইড বা গজ ব্যবহার করে ভালোভাবে বেধে দিন যাতে রক্তপাত না হয়।
  • বিড়ালের নখের আঁচড়ে বড়দের কিছু না হলেও অনেক সময় ছোটদের ক্ষেত্রে একটি বিষয় লক্ষ্য করা যায় যে তাদের জ্বর দেখা যায়। বিড়ালের নখের আঁচড়ে যদি জ্বর আসে তাহলে যত দ্রুত সম্ভব ডাক্তারের পরামর্শ নিতে হবে।

বিড়ালের আঁচড়ে কি ভ্যাকসিন দিতে হয়

বিড়ালের নখের আঁচড়ে খুব একটা ভ্যাকসিন দেওয়ার তেমন প্রয়োজন হয় না। তবে আপনাকে যে বিড়াল কামড় দেবে বা নখ দিয়ে আঁচড় দিবে সেই বিড়ালটি যদি রেবিস ভাইরাস দ্বারা আক্রান্ত হয়ে থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনাকে ভ্যাকসিন দিতে হবে। কারণ বিড়ালের মুখে থাকা লালার মাধ্যমে ভাইরাস অন্য ব্যক্তির শরীরে ছড়িয়ে পড়তে পারে। 

তাই আপনার পোষা বিড়ালটি যদি আপনাকে কখনো কামড় দেয় এবং সেই বিড়ালটির যদি রেবিস ভাইরাস থেকে থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনাকে ভ্যাকসিন ব্যবহার করতে হবে। আর তা না হলে সেই বিড়ালটি লালায় থাকা ভাইরাস আপনার শরীরের মধ্যে ছড়িয়ে পড়তে পারে।

বিড়াল কামড়ালে কত দিনের মধ্যে টিকা দিতে হয়

আমরা অনেকেই আমাদের বাড়িতে বিড়াল পালন করে থাকি। তবে অনেক সময় দেখা যায় যে সেই বিড়ালটি কোন না কোন কারণে ক্ষিপ্ত হয়ে কামড় দিয়ে থাকে। তবে যদি কোন বিড়াল আপনাকে কামড় দেয় তাহলে সে ক্ষেত্রে আপনার উচিত হবে ২৪ ঘন্টার মধ্যে টিকা দেওয়া। কারণ এই গৃহপালিত পোষা বিড়ালের কারণে অনেক সময় জ্বলাতঙ্ক রোগ হওয়ার আশঙ্কা থাকে। আর এই জলাতঙ্ক রোগ থেকে বাঁচার জন্য যত দ্রুত সম্ভব শরীরের মধ্যে টিকা দিতে হয়। 

এছাড়াও অন্যান্য গৃহপালিত পশুর কামড়েও অনেক সময় জলাতঙ্ক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থেকে থাকে। তাই অনুগ্রহ পালিত পশু কামড় দেয়ার সাথে সাথে আপনার উচিত হবে যে টিকা গ্রহণ করা। তবে তাদের কামরে যদি অনেক সময় দেখা যায় যে কোন ক্ষত হয় নাই তাহলে সে ক্ষেত্রে টিকা নেওয়ার তেমন খুব একটা প্রয়োজন নেই। তবে যদি প্রচন্ড পরিমাণে রক্তপাত হলে থাকে তাহলে সে ক্ষেত্রে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নিয়ে ভ্যাকসিন গ্রহণ করতে হবে।

বিড়ালের কামড়ের ভ্যাকসিনের দাম কত

আপনাকে যদি কোন সময় বিড়াল কামড় দেয় তাহলে সচরাচর আপনাকে রেবিস ভ্যাকসিন নিতে হবে। আপনি এই রেবিস ভ্যাকসিনগুলো সচরাচ র ৫০০ থেকে ৬০০ টাকার মধ্যে পেয়ে যাবেন। কিন্তু অনেক সময় কোন কোন সরকারি হাসপাতালে বিড়ালের কামড়ের এই ভ্যাকসিনগুলো আপনি বিনামূল্যে পেয়ে যেতে পারেন। 

তাই কোনো বিড়ালের কামড়ে যদি বেশি ক্ষত হয় তাহলে যত দ্রুত সম্ভব হাসপাতালে বহির্বিভাগে গিয়ে টিকিট কেটে একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের কাছে থেকে ভ্যাকসিন দিয়ে নেওয়া। তাহলে চলুন এখন জেনে নেওয়া যাক কিছু কোম্পানির ভ্যাকসিনের মূল্য।
  • রবীপুর ভ্যাকসিন ৬৪০ টাকা
  • রাবিভ্যাক্স ভ্যাকসিন ৫০০ টাকা
  • রাবিক্স ভিসি ভ্যাকসিন ৫০০ টাকা
  • ভেরোরাব ভ্যাকসিন ৯৯৮ টাকা

শেষ কথা

আপনি ইতিমধ্যে নিশ্চয়ই খুবই ভালোভাবে বুঝতে পেরেছেন যে বিড়ালের নখের আঁচড়ে কি সমস্যা হয় বা বিড়াল যদি তার নখ দিয়ে আঁচড় দেয় তাহলে কি কি করা উচিত এবং কখন টিকা দেওয়া উচিত এবং কখন ভ্যাকসিন নেওয়া উচিত। তাই কোন বিড়ালের নখের আঁচড়ে বা কামড়ে যদি বেশি ক্ষত হয়ে যায় বা বেশি রক্তপাত হতে থাকে তাহলে দেরি করে সময় নষ্ট না করে যত দ্রুত সম্ভব একজন অভিজ্ঞ ডাক্তারের কাছে থেকে পরামর্শ নেওয়া। আর তা না হলে পরবর্তীতে আপনাকে পড়তে হতে পারে বিভিন্ন ধরনের সমস্যার মধ্যে।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url