লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

বাঙালিরা খাবার খাওয়ার সময় প্লেটে এক টুকরো লেবু না থাকে, এমনটি যাতে কখনোই না হয়। কারণ লেবুতে রয়েছে বিশেষ ধরনের কিছু গুনাগুন। আপনি যদি প্রতিদিন খাবারের সাথে লেবু খেতে পারেন বা লেবুর রস থেকে শরবত বানিয়ে খেতে পারেন তাহলে বিভিন্ন ধরনের উপকার পাবেন। লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। 
লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা
আপনি যদি লেবুর উপকারিতা গুলো সম্পর্কে জানতে পারেন তাহলে আপনিও চাইবেন প্রতিনিয়ত লেবু খাওয়ার জন্য। আজকের আমাদের আলোচ্য বিষয়টি হলো লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা। আপনি যদি লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান তাহলে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

পোস্টের সূচিপত্রঃ লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা

ভূমিকা

লেবু হচ্ছে অতি সহজলভ্য একটি খাবার। লেবুর সহজলভ্য হলেও এর গুনাগুন কিন্তু অনেক। তবে লেবু পছন্দ করে না এমন মানুষ খুবই কমই খুঁজে পাওয়া যায়। লেবু বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। এজন্য লেবুর উপকারিতাও রয়েছে অনেক। আমরা দৈনন্দিন জীবনে বিভিন্নভাবে লেবুর ব্যবহার করে থাকি। কিন্তু আপনি কি কখনো জেনেছেন যে লেবু খাওয়ার মাধ্যমে উপকারিতা পাওয়া যায় আবার অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়ার ফলে কি কি অপকারিতা হতে পারে। 
আজকের এই আর্টিকেলটি লেখার কারণ হচ্ছে আপনাদেরকে লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানানোর জন্য। আশা করা যায় যে আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ার পর লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে আপনি সকল কিছু জেনে যাবেন। তাহলে আর দেরি না করে চলুন এখনই শুরু করা যাক।

লেবুর উপকারিতা

লেবুর বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক লেবুর উপকারিতা গুলো কি কি।
  • লেবুতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। আর এই ভিটামিন সি অ্যান্টিসেপটিক হিসেবে কাজ করে থাকে এবং মানুষের শরীরকে ঠান্ডা লাগা থেকে প্রতিরোধ করে।
  • আপনি যদি প্রতিনিয়ত লেবু খান তাহলে আপনার লিভার সুস্থ থাকবে।
  • আপনি যদি আপনার মুখের ব্রণ হওয়া স্থানে লেবুর রস লাগান তাহলে ব্রণ দূর হয়ে যাবে এবং নতুন ভাবে ব্রণ উঠতেও বাধা তৈরি করবে।
  • লেবুতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি থাকার কারণে এটি আপনার শরীরের ক্যান্সার সৃষ্টিকারী কোষগুলোকে ধ্বংস করে ফেলে।
  • প্রতিদিন লেবু খাওয়ার ফলে এটি আপনার পাকস্থলীতে সুস্থ রাখবে।
  • আপনার যদি উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যা থাকে তাহলে এই লেবু খাওয়ার মাধ্যমে আপনার উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যাটি দূর হয়ে যাবে।
  • আপনার যদি কোথাও কেটে যায় বা আপনার যদি কোথাও অপারেশন করা হয় তাহলে প্রতিদিন বেশি করে লেবু খাওয়ার ফলে আপনার সেই ক্ষত জায়গাটি খুবই দ্রুত সেরে যাবে।
  • লেবু ত্বকের যত্নে ব্যবহার করলে খুবই ভালো কাজ করে থাকে।
  • আপনি যদি লেবু আপনার চুলে ব্যবহার করেন তাহলে এটি আপনার মাথার চুল পড়াকে প্রতিরোধ করবে।
  • আপনার মাথায় যদি প্রচুর পরিমাণে খুশকি থাকে তাহলে আপনি লেবুর ব্যবহার করতে পারেন। কারণ লেবুর ব্যবহার করার মাধ্যমে মাথায় থাকা খুশকি গুলো দূর হয়ে যাবে।
  • প্রতিনিয়ত লেবু খাওয়ার মাধ্যমে এটা আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে তোলে।
  • আপনি যদি প্রত্যেকদিন লেবু খান তাহলে আপনার কিডনি ভালো থাকবে।
  • প্রতিদিন লেবু খাওয়ার মাধ্যমে শরীরের মধ্যে পানির ভারসাম্য বজায় থাকবে।
  • আপনার যদি অতিরিক্ত পরিমাণে ফ্যাট থাকে তাহলে এই লেবু খাওয়ার মাধ্যমে আপনার সেই অতিরিক্ত ফ্যাট গুলো খুব সহজেই দূর হয়ে যাবে।
  • লেবু খাওয়ার মাধ্যমে আপনার মুখে থাকা দুর্গন্ধ গুলো দূর হয়ে যাবে।
  • আপনার যদি কোষ্ঠকাঠিন্য জাতীয় সমস্যা থাকে তাহলে লেবু খাওয়ার মাধ্যমে এই কোষ্ঠকাঠিন্য জাতীয় সমস্যা দূর হয়ে যাবে।
  • আপনার যদি কখনো বুক জ্বালা পোড়া করে তাহলে আপনি লেবু খেতে পারেন। কারণ লেবু খাওয়ার মাধ্যমে বুকের জ্বালাপোড়া দূর হয়ে যায়।

লেবুর অপকারিতা

লেবুর যেমন অনেকগুলো উপকারিতা রয়েছে তেমনি সামান্য কিছু অপকারিতাও রয়েছে। চলুন তাহলে লেবুর অপকারিতা গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।
  • অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়ার ফলে গ্যাস্টিকের সমস্যা হতে পারে, তাই কখনোই অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাবেন না।
  • এসিডিটির সমস্যা থাকলে অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়ার ফলে বুকে জ্বালাপোড়া করতে পারে। তাই আপনার যদি এসিডিটির সমস্যা থেকে থাকে তাহলে অতিরিক্ত লেবু খাওয়া আপনার উচিত হবে না।
  • আপনি যদি আপনার অতিরিক্ত ওজন কমাবেন বলে খুব বেশি পরিমাণে লেবু খেতে থাকেন তাহলে এটার মাধ্যমে আপনার শরীরের কার্বোহাইড্রেট ও অন্যান্য পুষ্টির অভাব দেখা দিতে পারে।
  • আপনি যদি অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খেতে থাকেন তাহলে আপনার পেটে বা তলপেটে ব্যথা হতে পারে।
  • আমরা অনেকেই মনে করি যে লেবুর শরবত খাওয়ার ফলে শরীরের দুর্বলতা দূর হয়ে যায়। কিন্তু অতিরিক্ত পরিমাণে লেবুর শরবত খাওয়ার ফলে শরীরে দুর্বলতা দেখা যায়।
  • লেবুতে থাকে সাইট্রিক এসিড। তাই আপনি যদি অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খেতে থাকেন তাহলে আপনার দাঁতের ক্ষয় হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।
  • অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়ার ফলে বমি বমি ভাব হতে পারে।
  • খালি পেটে লেবু খাওয়ার মাধ্যমে অনেক সময় পাকস্থলীতে খাদ্য পরিপাক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে।
  • অতিরিক্ত পরিমাণে লেবু খাওয়ার ফলে বুকে জ্বালাপোড়া করার সম্ভাবনা থাকে।

খালি পেটে লেবু খেলে কি হয়

আপনি যদি প্রতিদিন সকালে খালি পেটে লেবু খেতে থাকেন তাহলে আপনার পেটের মধ্যে অ্যাসিড হতে পারে। আপনার শরীরের মধ্যে যে প্রয়োজনীয় উৎসেচক পেপসিন থাকে এটি সকালে খালি পেটে লেবু খাওয়ার মাধ্যমে ভেঙে যায়। আর আপনার যদি শরীরের মধ্যে থাকা এই পেপসিন ভেঙে যায় তাহলে আপনার হজম শক্তি কমে যেতে পারে। 
কারণ পেপসিন যেকোনো কিছু হজম করতে সহযোগিতা করে থাকে। আবার লেবুতে সাইট্রিক এসিড থাকার কারণে এটি পেপসিন গুলোকে ভেঙ্গে ক্ষতিকারক এনজাইম তৈরি করে ফেলবে। এবং এর ফলে খাবার ঠিকমতো হজম হতে চাইবে না।

লেবুর খোসার উপকারিতা

লেবুর যেমন বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে তেমনি লেবুর খোসারও বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা রয়েছে। চলুন তাহলে লেবুর খোসার উপকারিতা গুলো সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।
  • লেবুর খোসায় রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি তাই এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে তুলে।
  • আপনার যদি বুকে জ্বালাপোড়া হয়ে থাকে তাহলে এই লেবুর খোসার মাধ্যমে বুকের জ্বালাপোড়া কমানো যেতে পারে।
  • আপনার যদি আনসার জাতীয় সমস্যা থাকে তাহলে এই লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে আলসার জাতীয় সমস্যা দূর হয়ে যাবে।
  • আপনার যদি ডায়াবেটিসের সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আপনার উচিত লেবুর খোসা খাওয়া। কারণ লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে ডায়াবেটিস অনেকটা নিয়ন্ত্রণের মধ্যে থাকে।
  • আপনি যদি লেবুর খোসা মুখে ব্যবহার করেন তাহলে এর মাধ্যমে আপনার মুখে থাকা দাগগুলো দূর হয়ে যাবে।
  • লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার শরীরের কোলেস্টেরল এর মাত্রা কমায়।
  • লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার রক্তচাপ স্বাভাবিক রাখতে সহযোগিতা করবে।
  • লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার হাড়গুলোকে মজবুত রাখবে এবং সুস্থ রাখবে।
  • আপনার যদি কখনো পেট ফুলে থাকে তাহলে লেবুর খোসা খেতে পারেন। কারণ লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে পেট ফোলা দূর হয়ে যায়।
  • লেবুর খোসা খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার হজম শক্তি বৃদ্ধি করতে পারে।

লেবু ও গরম পানির উপকারিতা

গরম পানির সাথে লেবু মিশিয়ে খেলে বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা পাওয়া যায়। আসুন জেনে নিন লেবু ও গরম পানির উপকারিতা সম্পর্কে।
  • প্রতিদিন সকালবেলা উঠে খালি পেটে গরম পানির সাথে লেবু মিশিয়ে খাওয়ার ফলে এটি শরীরের পিএইচ এর মাত্রা ঠিক রাখে।
  • গরম পানির সাথে লেবু মিশিয়ে খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার কর্মক্ষমতাকে বৃদ্ধি করে তুলবে।
  • প্রতিদিন গরম পানির সাথে লেবু মিশিয়ে খেলে উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রিত হয়।
  • লেবুর সাথে গরম পানি মিশিয়ে খাওয়ার হলে দেহের হরমোন সক্রিয় থাকে।
  • প্রতিদিন সকালে গরম পানির সাথে লেবু খেলে এটা আপনার হজম শক্তিকে বৃদ্ধি করে তুলবে।
  • গরম পানির সাথে লেবু মিশিয়ে খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার শরীরের অতিরিক্ত ফ্যাটকে কমিয়ে ফেলবে।
  • লেবু এবং গরম পানি মিশিয়ে খাওয়ার ফলে কিডনিতে পাথর হওয়া থেকে দূরে থাকা যায়।

লেবু দিয়ে রূপচর্চা

লেবু যে শুধু খেলে উপকার পাওয়া যায় এমনটি নয়। আপনি চাইলে লেবু দিয়ে রূপচর্চাও করতে পারবেন। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক কি কি রূপচর্চার ক্ষেত্রে লেবু ব্যবহার করা হয়।
  • আপনি যদি লেবু আপনার মুখে ব্যবহার করেন তাহলে এটি আপনার ত্বকের হয় দূর করে ফেলবে এবং আপনার মুখে থাকা বয়সের ছাপ দূর করে ফেলবে।
  • আপনি যদি লেবুর রস আপনার চুলে ব্যবহার করেন তাহলে আপনার চুল পড়া অনেকটাই কমে যাবে।
  • আপনার মাথায় যদি খুশকি হয়ে থাকে তাহলে আপনি লেবুর রস মাথায় ব্যবহার করার মাধ্যমে মাথার খুশকি গুলোকে দূর করে ফেলতে পারবেন।
  • অনেকের হাঁটু বা কনুই এ কালচে ভাব দেখা দেয়। আপনি যদি লেবুর সাথে সামান্য পরিমাণ লবণ মিশিয়ে আপনার কালচে ভাবযুক্ত স্থানে সপ্তাহে দুই থেকে তিনবার ব্যবহার করেন তাহলে সেই কালচে ভাবগুলো দূর হয়ে যাবে।
  • লেবু ঠোঁটে ব্যবহার করার মাধ্যমে ঠোঁট পরিষ্কার হয়।
  • আপনি যদি লেবু আপনার দাঁতে ব্যবহার করেন তাহলে আপনার দাঁত পরিষ্কার এবং ঝকঝকে সাদা হয়ে যাবে। এজন্য বেকিং সোডা ও লেবুর রস একসঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে নিতে হবে। এরপর সেই পেস্ট দাঁতের উপরে হালকা প্রলেপের মত করে লাগিয়ে রাখতে হবে তাহলে দাঁত পরিষ্কার হয়ে যাবে।

শেষ কথা

আপনি ইতিমধ্যে লেবুর উপকারিতা ও অপকারিতা এবং লেবুর বিভিন্ন ধরনের গুনাগুন সম্পর্কে খুবই ভালোভাবে জেনেছেন। লেবু খেলে কি কি উপকার পাওয়া যায় এবং লেবু কি কি কাজে ব্যবহার করা হয় সে সম্পর্কে খুবই ভালোভাবে জেনেছেন। আশা করা যায় আজকের পর থেকে লেবুর উপকারিতা এবং অপকারিতা সম্পর্কে এর বেশি আর জানার প্রয়োজন নেই। 

আজকের আর্টিকেলটা যদি আপনার কাছে ভালো মনে হয় তাহলে এই আর্টিকেলটি অন্যদেরকে পড়ার সুযোগ করে দিন। এছাড়াও এরকম আরো নতুন নতুন এবং গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেল পড়ার জন্য নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করতে থাকুন।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url