নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা

নিম পাতা বিভিন্ন রোগের ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। নিম পাতার অনেকগুলো গুনাগুন রয়েছে। আজকের আমাদের আলোচ্য বিষয়টি হলো নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা। আজকের আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে আপনি নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে খুবই ভালোভাবে জানতে পারবেন।
নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা
নিম পাতা কি কি কাজে ব্যবহার করা হয় সে সম্পর্কেও আমরা আজকেরে আর্টিকেলের মধ্যে খুবই ভালোভাবে আলোচনা করবো। তাই আপনি যদি নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে জানতে চান তাহলে পুরো আর্টিকেলটি ভালোভাবে পড়ুন।

পোস্টের সূচিপত্রঃ নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা

ভূমিকা

নিম পাতার উপকারিতার কথা বলে কখনো শেষ করা যাবেনা। কারণ নিম পাতার রয়েছে বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা। নিম পাতা বিভিন্ন ধরনের রোগের ঔষধ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যদি কখনো প্রশ্ন করা হয় যে আমাদের আশেপাশে কোন ভেষজগুণ গাছটি বেশি দেখা যায়। তাহলে নিঃসন্দেহে আমাদের মাথায় যে গাছটির নাম চলে আসে সেটি হলো নিম গাছ। নিম গাছের পাতা থেকে শুরু করে এই নিম গাছের ছাল, বাকল, কাঠ সব কিছুই বিভিন্ন ধরনের কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। 
আপনি হয়তোবা ছোটবেলায় অনেকের কাছেই নিম পাতার বিভিন্ন ধরনের উপকারিতার কথা শুনেছেন। আজকে আমরা নিম পাতার উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করবো। শুধু যে নিম পাতার উপকারিতা সম্পর্কে আলোচনা করব এমনটি নয়। নিম পাতার যেসব অপকারিতা রয়েছে সে বিষয় নিয়েও আলোচনা করবো। তাই আপনি যদি নিম পাতার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে সঠিক ধারণা পেতে চান তাহলে পুরো আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ুন।

নিম পাতার পুষ্টিগুন

নিম পাতার বিভিন্ন ধরনের পুষ্টিগুণ রয়েছে। এবং নিম পাতায় বিভিন্ন ধরনের উপাদান রয়েছে। চলুন তাহলে জেনে না যাক নিম পাতার পুষ্টিগুণ সম্পর্কে।
  • নিম পাতায় ফাইবার এর পরিমাণ রয়েছে ৬.৭৭ গ্রাম।
  • নিম পাতায় ক্যালসিয়াম এর পরিমাণ রয়েছে ১৭৮.৫ গ্রাম।
  • নিম পাতায় কার্বোহাইড্রেট এর পরিমাণ রয়েছে ৮.১ গ্রাম।
  • নিম পাতায় ফ্যাট এর পরিমাণ রয়েছে ৩.৩৩ গ্রাম।
  • নিম পাতায় ম্যাগনেসিয়াম এর পরিমাণ রয়েছে ৪৪.৪৫ মিলি গ্রাম।
  • নিমপাতায় ফসফরাসের পরিমাণ রয়েছে ২৮ মিলি গ্রাম।
  • নিম পাতায় সোডিয়াম এর পরিমাণ রয়েছে ২৫.২৭ মিলি গ্রাম।
  • নিম পাতায় ক্যালরির পরিমাণ রয়েছে ৪৫ মিলি গ্রাম।
  • নিম পাতায় পটাশিয়াম এর পরিমাণ রয়েছে ৮৮.৯ মিলি গ্রাম।
  • নিমপাতায় আয়রন এর পরিমাণ রয়েছে ৫.৯৮ মিলি গ্রাম।

নিম পাতার ব্যবহার

নিমপাতা বিভিন্ন ধরনের কাজে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যেসব কাজে নিমপাতা ব্যবহার করা হয়ে থাকে সেগুলো নিচে উল্লেখ করা হলোঃ
  • ক্যান্সার রোগের ঔষধ হিসেবে নিম পাতার ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
  • ডায়াবেটিস রোগের মহা ঔষধ হিসেবে নিম পাতার ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
  • কারো যদি হজম সংক্রান্ত কোনো সমস্যা থেকে থাকে তাহলে নিম পাতার ব্যবহার করা যেতে পারে।
  • উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যায় নিম পাতার ব্যবহার করা হয়ে থাকে।
  • গ্যাস্ট্রিকের মত সমস্যার জন্য নিম পাতার গুরুত্ব অপরিসীম।
  • নিম পাতা সেবন করার মাধ্যমে শরীর থেকে বিষাক্ত বর্জ্য পদার্থ গুলো বের হয়ে যায়।
  • মিমের হল থেকে যে সাবান বা তেল তৈরি হয় সেটি হাঁপানি রোগের হাত থেকে রক্ষা করে।
  • কারো রক্তে যদি শর্করার পরিমাণ অতিরিক্ত পরিমাণে থাকে তাহলে সে অতিরিক্ত শর্করা কমাতে নিম পাতা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

খালি পেটে নিম পাতার রস খেলে কি হয়

আপনি যদি প্রতিদিন খালি পেটে নিম পাতার রস খান তাহলে আপনার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেড়ে যাবে। এছাড়া মানুষের শরীরের মধ্যে যে ক্ষতিকর পদার্থ গুলো থাকে সেগুলো প্রতিদিন সকালে খালি পেটে নিমপাতার রস খাওয়ার মাধ্যমে বের হয়ে যায় প্রতিদিন সকালে খালি পেটে নিম পাতার রস খাওয়ার মাধ্যমে আমাদের পাকস্থলীতে যে ক্ষতিকারক ব্যাকটেরিয়া গুলো থাকে সেইগুলো মারা যায় এবং আমাদের পাকস্থলীকে সুরক্ষিত রাখে। 

এছাড়া আপনি যদি প্রতিদিন সকালে খালি পেটে নিম পাতার রস খান তাহলে আপনার যদি কোন প্রকার গ্যাস্টিকের সমস্যা থেকে থাকে তাহলে আপনি সেই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে পারেন। এছাড়া প্রতিদিন খালি পেটে নিম পাতার রস খাওয়ার মাধ্যমে আপনার রক্ত থাকা ক্ষতিকারক উপাদানগুলো দূর হয়ে যায়। এছাড়া প্রতিদিন সকালে যদি খালি পেটে নিপাতের রস খাওয়া যায় তাহলে এটি শরীরে ইমিউনিটি বাড়াতে সহযোগিতা করে। 

প্রতিদিন সকালে খালি পেটে নিমপাতার রস খাওয়ার মাধ্যমে ত্বকের সৌন্দর্য অনেকটা বেড়ে যায়। তাই বলা যায় যে খালি পেটে নিম পাতার রস খাওয়ার উপকারিতা রয়েছে অনেক। তাই আপনি যদি পারেন তাহলে চেষ্টা করবেন প্রতিদিন সকালে খালি পেটে নিম পাতার রস খাওয়ার জন্য।

নিম পাতার উপকারিতা

সুস্বাস্থ্য রক্ষার জন্য নিম পাতার বহু গুণ উপকারিতা রয়েছে। নিম পাতা বিভিন্ন রোগের চিকিৎসার ক্ষেত্রে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। চলুন তাহলে নিমপাতার কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাকঃ

ওজন কমাতেঃ ওজন কমাতে নিমপাতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। প্রতিদিন নিম পাতার রস খাওয়ার মাধ্যমে এটি আপনার শরীরের বাড়তি চর্বি কমিয়ে ফেলতে পারবে। এবং আপনার শরীরের অতিরিক্ত ফ্যাট কমিয়ে ফেলতে পারবে। শরীরের ওজন কমানোর জন্য প্রতিদিন নিমপাতার রস তৈরি করে সেটির সাথে এক চা চামচ পরিমাণ মধু মিশিয়ে এবং সেটির সাথে এক চা চামচ পরিমাণ লেবুর রস মিশিয়ে সেবন করলে আপনার শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমিয়ে ফেলবে।

রক্ত পরিষ্কার করতেঃ আপনি যদি প্রতিদিন নিম পাতার রস সেবন করেন তাহলে আপনার রক্ত পরিষ্কার থাকবে। এছাড়া আপনি যদি প্রতিদিন নিম পাতার রস এবং করেন তাহলে আপনার রক্তে থাকা অতিরিক্ত শর্করার পরিমাণ কমিয়ে ফেলবে। এই নিম পাতার রস রক্তে থাকা বিষাক্ত পদার্থগুলো শরীর থেকে বের করে ফেলে।

উচ্চ রক্তচাপ কমাতেঃ উচ্চ রক্তচাপ কমানোর জন্য নিম পাতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। এই নিম পাতার রস প্রতিনিয়ত সেবনের ফলে মানুষের শরীরের মধ্যে রক্ত চলাচল নিয়ন্ত্রিত থাকে। প্রতিনিয়ত নিম পাতার রস সেবন করার ফলে এটি আপনার রক্তের চলাচল স্বাভাবিক অবস্থায় রাখে।

খুশকি দূর করতেঃ নিম পাতায় বিভিন্ন ধরনের ব্যাকটেরিয়া নাশক উপাদান রয়েছে। এই উপাদানগুলি আপনার মাথার খুশকি দূর করতে খুবই ভালো কাজ করে থাকে। আপনি যদি নিম পাতার পেস্ট তৈরি করে সেটি আপনার মাথার তালুতে ভালোভাবে লাগিয়ে রাখেন তাহলে সেটি আপনার মাথার খুশকি দূর করে ফেলবে। 

এছাড়া এই নিম পাতার পেস্ট আপনার মাথার খুশকি দূর করার পাশাপাশি এটি আপনার মাথার উকুন দূর করতে সহযোগিতা করবে এবং আপনার মাথায় যদি কোন প্রকার চুলকানি জাতীয় সমস্যা থাকে তাহলে সেটিও দূর করতে খুবই ভালো কাজ করে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করার জন্যঃ নিম পাতার রস ডায়াবেটিস রোগের মহা ঔষধ হিসেবে ব্যবহার করা হয়ে থাকে। কোন ব্যক্তি যদি প্রতিনিয়ত নিম পাতার রস সেবন করে তাহলে তার শরীরে কোন প্রকার ডায়াবেটিস থাকবে না।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করতেঃ ক্যান্সার প্রতিরোধ করতে নিমপাতা খুবই ভালো কাজ করে থাকে। নিম পাতায় স্যাকারাইডস এবং লিওমনোয়েডস নামক দুই ধরনের উপাদান রয়েছে এটি একজন মানুষের শরীরের ক্যান্সার উৎপাদনকারী কোষগুলোকে পরিপূর্ণভাবে ধ্বংস করে ফেলে।

নিম পাতার অপকারিতা

এতক্ষণতো নিম পাতার বিভিন্ন ধরনের উপকারিতা নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে। তাহলে এখন মাথায় একটি প্রশ্ন আসতে পারে যে নিম পাতার কি কোন অপকারিতা রয়েছে। প্রত্যেকটি জিনিসের যেমন উপকারিতা রয়েছে তেমনি বেশ কিছু অপকারিতাও রয়েছে। তাই নিম পাতার যেমন উপকারিতা রয়েছে তেমনি নিম পাতার কিছু অপকারিতাও রয়েছে। চলুন তাহলে নিম পাতার কিছু অপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাকঃ
  • অতিরিক্ত পরিমাণে নিম পাতার রস সেবন করার ফলে অনেক সময় কিডনির বিভিন্ন ধরনের ক্ষতি হতে পারে।
  • আপনার যদি লিভারের কোন প্রকার সমস্যা থাকে তাহলে আপনার নিম পাতার রস খাওয়া উচিত হবে না। কারণ নিম পাতার রস খাওয়ার মাধ্যমে লিভারের সমস্যা আরো বেড়ে যেতে পারে।
  • আমরা জানি যে নিম পাতার রস এলার্জি জাতীয় সমস্যা দূর করে থাকে কিন্তু অনেক সময় অতিরিক্ত পরিমাণে নিম পাতার রস সেবন করার ফলে এটি আপনার এলার্জির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।
  • যদি কোন মানুষের নিম্ন রক্তচাপ থেকে থাকে তাহলে তার কখনোই উচিত হবে না অতিরিক্ত পরিমাণে নিম পাতার রস সেবন করা।
  • গর্ভবতী অবস্থায় নিম পাতার রস সেবন করলে বিভিন্ন ধরনের সমস্যা হতে পারে।

শেষ কথা

আশা করা যায় যে আপনি নিম পাতার উপকারিতা এবং অপকারিতা সম্পর্কে সম্পূর্ণ একটি ধারণা পেয়েছেন। নিম পাতার গুনাগুন সম্পর্কে যতই বলি না কেন যেন মনে হয় অনেকটাই কম হয়ে গেছে। তাই নিম পাতার গুনাগুন কখনোই বলে শেষ করা যাবে না। সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি পড়ার জন্য এবং এতক্ষণ পর্যন্ত আমাদের সাথে থাকার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url