পেঁপে চাষের আধুনিক পদ্ধতি

পেঁপে খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সবজি। আমরা অনেকেই পেঁপে চাষ করে থাকি। কিন্তু কিছু আধুনিক নিয়ম এবং কিছু আধুনিক পদ্ধতি না জানার কারণে পেঁপে চাষের তেমন ভালো ফলাফল পাওয়া যায় না। তাই আপনারা যাতে পেঁপে চাষ করে ভালো ফলাফল পান এজন্য আমরা পেঁপে চাষের আধুনিক পদ্ধতি সম্পর্কে আজকের এই আর্টিকেলটি লিখছি। 
পেঁপে চাষের আধুনিক পদ্ধতি
আশা করা যায় যে আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ার মাধ্যমে আপনিও আধুনিক পদ্ধতিতে পেঁপে চাষ করতে পারবেন এবং ভালো ফলন পাবেন। তাই আপনি যদি পেঁপে চাষের আধুনিক পদ্ধতি শিখতে চান তাহলে আর দেরি না করে মনোযোগ সহকারে পুরো আর্টিকেলটি ভালোভাবে পড়ুন। তাহলে চলুন শুরু করা যাক।

পোস্টের সূচিপত্রঃ পেঁপে চাষের আধুনিক পদ্ধতি

ভূমিকা

পেঁপে খুবই সুস্বাদুকর এবং খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি সবজি। আমরা প্রতিনিয়তই কাঁচা পেঁপেকে সবজি হিসেবে ব্যবহার করে থাকি। এই পেঁপে সারা দেশের বিভিন্ন স্থানে বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হয়। তবে কিছু কিছু কৃষক রয়েছেন যারা পেঁপে চাষের কিছু আধুনিক পদ্ধতি রয়েছে সেসব আধুনিক পদ্ধতি না জানার কারণে তারা তাদের পেঁপে চাষে তেমন ভালো ফলন পায় না। 
যেমনটি তারা আশা করে থাকে তেমন ফলন তাদের পক্ষে পাওয়াটা অসম্ভব হয়ে যায়। তাই আজকে আমরা আপনাদের সামনে পেঁপে চাষের এমন কিছু আধুনিক পদ্ধতি তুলে ধরব যেগুলোর মাধ্যমে আপনি আপনার পেঁপে চাষে অনেক ভালো ফলন পাবেন এবং আপনারা যেমনটি আশা করে থাকবেন ঠিক তেমনভাবেই পেঁপের ফলন করতে পারবেন।

পেঁপের জাত নির্বাচন

আধুনিক পেঁপে চাষ করার জন্য প্রথমে যে বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে সেটি হল পেঁপের জন্য একটি ভালো জাত নির্বাচন করতে হবে। কারণ আপনি যদি ভালো জাতের পেঁপে নির্বাচন না করতে পারেন তাহলে কখনোই আপনি ভাল ফলন পাবেন না। আমাদের দেশে অনেক জাতের পেঁপে চাষ করা হয়। এরমধ্যে যে জাতগুলো বেশি প্রচলিত রয়েছে সেগুলো হলঃ রেড লেডি, সুইট লেডি, শাহী পেঁপে, কাশিমপুরী, হাইব্রিড ইত্যাদি। 

এই সকল জাতের মধ্যে সবচেয়ে বেশি যে জাতের পেপেটি প্রচলিত রয়েছে সেটি হল সুইট লেডি। এটি এক ধরনের হাইব্রিড জাতীয় পেঁপের জাত। এই ধরনের পেঁপে চাষে আপনি অধিক ফলন পেতে পারেন। এছাড়া আরেকটি পেঁপের জাত রয়েছে যেটির মাধ্যমে আপনি অনেক বেশি ফলন পেতে পারেন সেটি হল শাহী পেঁপে। এই ধরনের পেঁপে প্রায় সব অঞ্চলেই চাষ করা যায়। এটি এক ধরনের একলিঙ্গ জাতের পেঁপে। এই ধরনের পেঁপে গাছে খুব ছোট অবস্থাতেই প্রচুর পরিমাণে গাছে ফল ধরা শুরু করে।

পেঁপের চারা উৎপাদন পদ্ধতি

আধুনিক পেঁপে চাষের জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ হল পেঁপের চারা উৎপাদন পদ্ধতি। আপনি যদি পেঁপের চারার ভালোভাবে উৎপাদন পদ্ধতি না জানেন তাহলে কখনোই ভালো ফলন পাবেন না। ভালো ফলন পেতে হলে আপনাকে পেঁপের চারা উৎপাদনের পদ্ধতি সম্পর্কে ভালোভাবে জানতে হবে। তাহলে চলুন জেনে নেওয়া যাক কিভাবে পেঁপের চারা উৎপাদন করলে ভালো ফলন পাওয়া যাবে।

পেঁপের চারা উৎপাদনের জন্য পলিব্যাগের ব্যবহার করলে বেশি ভালো হয়। তার কারণ হলো আপনি যদি পলিব্যাগে পেঁপের চারা উৎপাদন করে থাকেন তাহলে এটি রোপণ করার সময় অনেক ভালোভাবে রোপন করা যায় এবং এই পলিব্যাগে চারা উৎপাদনের ফলে চারা খুব দ্রুত বাড়তে থাকে। আর আপনি যদি কোন একটি স্থানে অর্থাৎ বীজ তলায় চারা রোপণ করতে চান তাহলে আপনাকে ১০-১৫ সে.মি. সারি করে প্রতিটি সারিতে ৩-৪ সে.মি. নিচে বীজ বপন করতে হবে। 

আর আপনি যদি পলিব্যাগে চারা রোপন করতে চান তাহলে একটি জায়গায় ভালোভাবে বালি, মাটি ও পচা গোবর সার মিশিয়ে ভালোভাবে একটি মিশ্রণ তৈরি করতে হবে। এরপর আপনি যে পলিব্যাগ গুলোতে চারা উৎপাদন করবেন সেই পলিব্যাগের নিচে অন্তত দুই থেকে চারটি ছোট ছোট ছিদ্র করবেন। 

এরপর সেই মাটির মিশ্রণগুলো এক একটি পলিব্যাগে তুলে নিতে হবে এবং একটি পলিব্যাগে দুইটি করে বীজ বপন করতে হবে। মনে রাখবেন যে বীজ বপণের ১৫ থেকে ২০ দিন পরে চারা গজিয়ে ওঠে এবং আপনি সেটি ৪০ থেকে ৫০ দিন পরে আপনার জমিতে রোপন করতে পারবেন।

আধুনিক পদ্ধতিতে পেঁপে গাছ রোপনের পদ্ধতি

এতক্ষণতো আপনি জানলেন যে কিভাবে পেঁপে গাছের জাত নির্বাচন করবেন এবং কিভাবে পেঁপের চারা উৎপাদন করবেন। তাহলে এখন আপনাকে জানতে হবে যে সেই পেঁপের চারা গুলো বা পেঁপের গাছগুলো আপনি কিভাবে রোপণ করবেন। আপনি যদি পেঁপে গাছগুলো সঠিক পদ্ধতিতে রোপণ না করতে পারেন তাহলে আপনার গাছ কখনোই ভালো হবে না। তাহলে চলুন পেঁপে গাছের রোপণ পদ্ধতি সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক।

আপনি যখন আপনার জমিতে পেঁপে রোপণ করবেন তখন আপনাকে মাথায় রাখতে হবে যে পেঁপের চারার বয়স যখন দেড় থেকে দুই মাসের মত হবে তখন আপনি সেই পেঁপে গাছটি রোপন করতে পারবেন। আপনি যেখানে পেঁপে গাছ রোপন করবেন সেখানে ৪৫ সে.মি. লম্বা, ৪৫ সে.মি. চওড়া এবং ৪৫ সে.মি. গভীর গর্ত খুঁড়বেন। এবং পেঁপে গাছ লাগানোর কয়েকদিন আগেই সে গর্তগুলিতে গোবর সার মিশিয়ে সেগুলো ভালোভাবে ওলট-পালট করে মাটির সাথে মিশিয়ে রেখে দিতে হবে। 

এবং সে মাটির সাথে কিছু পরিমাণ সার আগে থেকে মিশিয়ে রাখলে ভালো হয়। আপনি আপনার বীজতলায় যে চারা রোপন করবেন সেই চারা গুলোর উন্মুক্ত পাতাগুলো আগে ঝরিয়ে নিতে হবে। এই পাতা ঝরিয়ে নেওয়ার কারণ হলো এটির কারণে গাছগুলোর মৃত্যুর হার অনেকটা কমে যায় এবং খুবই দ্রুত চারা বৃদ্ধি পেতে থাকে। বৃষ্টি হওয়ার পরে যাতে পানি বেঁধে না থাকে এজন্য দুটি গাছের মাঝখান দিয়ে নালা করে রাখতে হবে।

পেঁপে গাছের পরিচর্যা

আধুনিক পেঁপে চাষের জন্য এবং পেঁপের ভালো ফলাফলের জন্য যে বিষয়টি মাথায় রাখতে হবে সেটি হল পেঁপে গাছের পরিচর্যা। আপনি যত ভালোভাবে পেপে গাছের পরিচর্যা করতে পারবেন তত ভালো আপনি ফলন পাবেন। এজন্য পেঁপে গাছের পরিচর্যা সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক কিভাবে পেঁপে গাছের পরিচর্যা করবেন।
  • আপনি যে জমিতে পেপে লাগাবেন বা পেঁপে গাছের আশেপাশের সব সময় আগাছা মুক্ত রাখার চেষ্টা করবেন। কারণ আগাছা মুক্ত থাকলে পেঁপে গাছ তাড়াতাড়ি বড় হয় এবং ভালো হয়।
  • আপনি যখন বর্ষাকালে পেঁপে গাছের আগাছা পরিষ্কার করবেন তখন একটি বিষয় মাথায় রাখতে হবে সেটি হল পেঁপে গাছের আগাছা পরিষ্কার করতে গিয়ে মাটি খুব বেশি আলগা করা যাবে না।
  • ঝড়ের কারণে পেঁপে গাছ অনেক সময় ভেঙে যায়। পেঁপে গাছ যাতে ভেঙে না যায় এজন্য পেঁপে গাছগুলোতে বাঁশের খুঁটি দিয়ে বেঁধে দিতে হবে।
  • গাছের গোড়ায় যাতে কখনো খুব বেশি পরিমাণে পানি জমে না থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
  • পেঁপে গাছগুলোতে সেচ দেওয়ার পরে মাটিতে জো হলে কোদাল দিয়ে মাটি গুলোকে আলগা করে দিতে হবে।

পেঁপের রোগ বালাই ও পোকামাকড় দমন

পেঁপে চাষের জন্য পেঁপের গাছে যাতে রোগ বালাই না হয় এবং পেঁপে গাছগুলো যাতে পোকামাকড় থেকে মুক্ত থাকে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। আসুন জেনে নেওয়া যাক যে পেঁপের গাছে কি কি ধরনের রোগ হয়ে থাকে।
  • ঢলে পড়া ও কাণ্ড পঁচা রোগ
  • পাতা কোঁকড়িয়ে যাওয়া রোগ
  • মোজাইক রোগ
  • এ্যানথ্রাকনোজ
  • পেঁপে গাছে যে পোকাটি বেশি দেখা যায় সেটি হল মিলিবাগ পোকা

শেষ কথা

আপনি ইতিমধ্যে পেঁপে গাছের চারা কিভাবে উৎপাদন করতে হয়, পেঁপে গাছ কিভাবে রোপন করতে হয় এবং কিভাবে ভেবে গাছের পরিচর্যা করতে হয় সেসব বিষয় সম্পর্কে খুবই ভালোভাবে জেনেছেন। আশা করি এখন আর আপনার আধুনিক পেঁপে চাষ করতে কোন প্রকার সমস্যার মধ্যে পড়তে হবে না। আপনি যদি এভাবে পেঁপে চাষ করতে পারেন তাহলে আপনি খুবই ভালো ফলাফল পাবেন। আশা করা যায় যে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার জন্য অনেকটাই কাজে দিবে। 

আজকের এই আর্টিকেলটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে আর্টিকেলটি অন্যদেরকে পড়ার এবং আধুনিক পেঁপে চাষ পদ্ধতি সম্পর্কে জানার সুযোগ করে দিন। আর এরকম আরো নতুন নতুন আর্টিকেল পড়ার জন্য নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন। ভালো থাকবেন এবং সুস্থ থাকবেন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url