ওসিডি কি ভাল হয় - ওসিডি থেকে মুক্তির উপায়

একজন মানুষের মধ্যে যতগুলো মানসিক রোগ দেখা যায় তার মধ্যে অন্যতম প্রধান রোগ হল এই ওসিডি রোগ। তবে অনেকেই জানেন না যে এই ওসিডি রোগের চিকিৎসা কিভাবে নিতে হয়। যার কারণে তারা প্রতিনিয়তই এ রোগে ভুগছে। আবার অনেকে এটাও জানে না যে ওসিডি কি ভাল হয়। 
ওসিডি কি ভাল হয়
তাই আপনারা যাতে এসব বিষয় সম্পর্কে জানতে পারেন এজন্য আজকের এই আর্টিকেলে আমরা যে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করব সেটি হল ওসিডি কি ভালো হয় এবং ওসিডি থেকে মুক্তির উপায়। আপনি যদি জানতে চান যে ওসিডি কি ভালো হয় এবং ওসিডি থেকে মুক্তির উপায় তাহলে আপনার উচিত হবে সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়া। তাহলে আর দেরি না করে চলুন এখনি জেনে নেওয়া যাক।

পোস্টের সূচিপত্রঃ ওসিডি কি ভাল হয় - ওসিডি থেকে মুক্তির উপায়

ওসিডি কি

ওসিডি হচ্ছে এমন এক ধরনের রোগ যাকে বাংলায় শুচিবায়ু বলা হয়। এই ওসিডি এর পূর্ণরূপ হলো Obsessive Compulsive Disorder । সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকা একটি স্বাস্থ্যকর অভ্যাস কিন্তু এই অভ্যাসটি যখন আপনার খুঁতখুঁতিতে পরিণত হয়ে যাবে অর্থাৎ বদ অভ্যাসে পরিণত হয়ে যাবে তখন এই ওসিডি রোগের সমস্যা দেখা যায়। এ রোগে যারা আক্রান্ত হয়ে পড়ে তারা কম্পালসনের এক চক্রের মধ্যে আটকা পড়ে যায়। তাই সব সময় উচিত এ ধরনের রোগ থেকে দূরে থাকা।

ওসিডি রোগের লক্ষণ

ওসিডি আক্রান্ত রোগীদের মধ্যে সাধারণত বিভিন্ন ধরনের লক্ষণ দেখা যায়। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক যে কোন লক্ষণ গুলো দেখা দেওয়ার মাধ্যমে আপনি বুঝতে পারবেন যে ওসিডি রোগ হয়েছে।
  • সব সময় অহেতুক এবং ভীতিকর চিন্তাভাবনা করতে থাকা ওসিডি রোগের একটি লক্ষণ।
  • আপনি জানেন যে আপনার শরীর, কাপড় এবং আসবাবপত্র পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন আছে তারপরেও সেগুলো পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন আছে কিনা এই নিয়ে অহেতুক চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে ওসিডি রোগের লক্ষণ।
  • যারা ওসিডি রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে তাদের মধ্যে একটি লক্ষণ দেখা যায় সেটি হল তারা সব সময় অন্যকে আঘাত করতে চায়।
  • যারা ওসিডি রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে তারা যৌনতা নিয়ে বিভিন্ন ধরনের চিন্তা করতে থাকে।
  • যে ব্যক্তি ওসিডি রোগে আক্রান্ত হয়ে পড়ে সেই ব্যক্তি ধর্মীয়ভাবে হতাশ হয়ে নিজের সৃষ্টিকর্তার বিরুদ্ধে অশ্লীল চিন্তাভাবনা করে।
  • কোন জিনিসপত্র নিজের মনের মত না সাজাতে পারার জন্য অস্থির হয়ে যাওয়া ওসিডি রোগের একটি লক্ষণ।
  • ওসিডি রোগের একটি লক্ষণ হল জীবাণুর ভয়ে কিছুক্ষণ পরপর অনবরত হাত পরিষ্কার করা।
  • কিছুক্ষণ পরপর অহেতুক চিন্তা ভাবনা করা যেমন এটা ঠিক আছে কিনা, ওটা ঠিক আছে কিনা এ ধরনের চিন্তাভাবনা বারবার করা হচ্ছে ওসিডি রোগের একটি লক্ষণ।

ওসিডি কি ভালো হয়

আপনি ইতিমধ্যে বুঝে গেছেন যে কি কি লক্ষণ দেখা দেওয়ার মাধ্যমে আপনি ওসিডি রোগ বুঝতে পারবেন। আপনার মনে যদি একটি প্রশ্ন আসে যে ওসিডি রোগ থেকে কি আসলেই মুক্তি পাওয়া যায়। ওসিডি রোগ থেকে পরিপূর্ণভাবে মুক্তি পাওয়াটা একটু কঠিন ব্যাপার। তার কারণ হলো কোন একটি রোগে যখন আপনি দীর্ঘদিন যাবত ধরে আক্রান্ত হয়ে পড়েন তখন সেই রোগ থেকে মুক্তি পাওয়াটা অনেকটাই কঠিন হয়ে পড়ে। 
এই ওসিডি রোগ যেমন দীর্ঘদিন ধরে হয়ে থাকে তেমনি এই রোগের চিকিৎসাও দীর্ঘমেয়াদি হয়ে থাকে। তবে এই রোগ থেকে যে একেবারেই মুক্তি পাওয়া যায় না বিষয়টি ঠিক এমনটি নয়। আপনি যদি নিয়মিত ওষুধ খেতে থাকেন এবং বারবার ওষুধ পরিবর্তন করতে থাকেন ও নিজে নিজে পরিবর্তন হওয়ার চেষ্টা করেন তাহলে অবশ্যই আপনি এই ওসিডি রোগ থেকে খুব সহজে অনেকটা মুক্তি পেয়ে যাবেন।

ওসিডি রোগের চিকিৎসা পদ্ধতি

ওসিডি রোগে আক্রান্ত রোগীরা সব সময় বিভিন্ন ধরনের মানসিক অস্থিরতায় ভোগেন। এই ওসিডি রোগ হওয়ার বিভিন্ন ধরনের কারণ রয়েছে তার মধ্যে একটি কারণ হলো বংশগত কারণ। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই ওসিডি রোগের চিকিৎসা পদ্ধতি সম্পর্কে।
  • এই ওসিডি রোগে যারা আক্রান্ত হয়ে পড়বে তাদেরকে কখনোই ময়লা হাত দিয়ে হাত ধুতে দেওয়া যাবে না। যখনই তারা হাত ধোয়ার চেষ্টা করবে তখনই তাদের হাতকে আটকে দিতে হবে যাতে তাদের মানসিক পরিবর্তন ঘটে।
  • একজন ওসিডি আক্রান্ত রোগী কেমন করে এই বিষয়ে তাকে বেশি বেশি করে বোঝাতে হবে। প্রয়োজন হলে তার চলাফেরা গুলো রেকর্ড করে রাখতে হবে এবং তাকে দেখাতে হবে যে সে কি ধরনের আচরণ করে।
  • এ ধরনের রোগীকে সবসময় ডাক্তারের কাছে নিয়ে যেতে হবে এবং ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী চিকিৎসা ব্যবস্থা নিতে হবে।
  • ডাক্তাররা যে ধরনের চিকিৎসা নিতে বলবে এবং যে ওষুধগুলো খাওয়ার পরামর্শ দিবে সে ওষুধগুলো নিয়মিত খেতে হবে। কখনোই ওষুধ খাওয়াতে অনিয়ম করা যাবে না।
  • রোগীকে সবসময় বিভিন্ন ধরনের মানুষের সাথে চলাফেরা করার জন্য বলতে হবে তার কারণ হলো যখন সেই ব্যক্তি বিভিন্ন ধরনের মানুষের সাথে চলাফেরা করবে তখন খুব সহজেই সে এ ধরনের রোগ থেকে মুক্তি পেয়ে যাবে।

ওসিডি রোগ থেকে মুক্তির উপায়

ওসিডি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য রোগীকে সবসময় নিজেকে সচেতন হতে হবে। তাহলে খুব সহজেই এই ওসিডি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। চলুন তাহলে জেনে নেওয়া যাক ওসিডি রোগ থেকে মুক্তির উপায় সম্পর্কে।
  • ওসিডি রোগ যেহেতু এক ধরনের মানসিক সমস্যা তাই সবসময় নিজেকে নিয়ন্ত্রণের মধ্যে রাখার চেষ্টা করতে হবে। অন্যরা যেভাবে চলাফেরা করে নিজেকেও সেভাবে চলাফেরা করতে হবে।
  • সব সময় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন হওয়া থেকে দূরে থাকতে হবে। একজন মানুষের পরিষ্কার হওয়ার জন্য যতটুকু নিজেকে পরিষ্কার করার প্রয়োজন ততটুকুই করা। অযথা একটু পর পর হাত-পা পরিষ্কার না করা।
  • কেউ যদি ওসিডি রোগ থেকে মুক্তির উপায় সম্পর্কে আপনাকে বলে তাহলে কখনো তাকে অবহেলা করা যাবে না। কারণ সেই ব্যক্তিটি আপনাকে এ রোগ থেকে মুক্তি দেওয়ার জন্য আপনাকে পরামর্শ দিচ্ছে।
  • ওসিডি রোগের ধর্মীয় দোয়া রয়েছে সেটি সব সময় পাঠ করা।
  • ওসিডি রোগ থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সব সময় আল্লাহর কাছে প্রার্থনা করা।
  • ওসিডি রোগের লক্ষণ দেখা দিলে চিকিৎসকের পরামর্শ নেওয়া এবং চিকিৎসক যেভাবে ওষুধ সেবন করতে বলবে সেভাবে ওষুধ সেবন করা।

আমাদের শেষ কথা

সুপ্রিয় পাঠক আপনি যদি সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ সহকারে পড়ে থাকেন তাহলে নিশ্চয়ই জানতে পেরেছেন যে আপনি কিভাবে এই ওসিডি রোগ থেকে মুক্তি পাবেন এবং কি কি লক্ষণ দেখা দেওয়ার মাধ্যমে বুঝতে পারবেন যে ওসিডি রোগ হয়েছে। যদি আপনার কাছে আর্টিকেলটি ভালো লেগে থাকে তাহলে সেটা আপনার বন্ধুদের কাছে শেয়ার করে দিন। এছাড়াও আপনি যদি বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য বিষয়ক আর্টিকেল পড়তে চান তা হলো নিয়মিত আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন এবং আমাদের সাথেই থাকুন। ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন ধন্যবাদ।

এই পোস্টটি পরিচিতদের সাথে শেয়ার করুন

পূর্বের পোস্ট দেখুন পরবর্তী পোস্ট দেখুন
এই পোস্টে এখনো কেউ মন্তব্য করে নি
মন্তব্য করতে এখানে ক্লিক করুন

অর্ডিনারি আইটির নীতিমালা মেনে কমেন্ট করুন। প্রতিটি কমেন্ট রিভিউ করা হয়।

comment url